করিমপুরে উপনির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে ভোট প্রচারে সামিল থানার ওসি-ও! এলাকার প্রাক্তন বিধায়ক তথা কৃষ্ণনগরের সাংসদ মহুয়া মৈত্রের সঙ্গে তাঁর ছবি ভাইরাল হয়ে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। নির্বাচন কমিশনের অভিযোগ দায়ের করেছে বিজেপি।

গত বিধানসভা ভোটে নদিয়ার করিমপুর থেকে বিধায়ক নির্বাচিত হন তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী মহুয়া মৈত্র। লোকসভা ভোটে কৃষ্ণনগর কেন্দ্রে ফের তাঁকে প্রার্থী করে রাজ্যের শাসক। নদিয়ার রানাঘাট কেন্দ্রটি হাতছাড়া হয়েছে তৃণমূলের। তবে কৃষ্ণনগর কেন্দ্রে কিন্তু জিতেছেন মহুয়া। ফলে করিমপুর বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচন হচ্ছে। আগামী ২৫ নভেম্বর ভোটগ্রহণ হবে তৃণমূল কংগ্রেসের দখলে থাকা এই বিধানসভা।  জোরকদমে প্রচারে নেমেছে শাসক বিরোধী উভয়পক্ষই। কিন্তু প্রচারপর্বের একটি ছবিকে ঘিরে এখন বিতর্ক তুঙ্গে। ছবি রীতিমতো ভাইরাল হয়ে গিয়েছে  সোশ্যাল মিডিয়ায়। 

কীসের ছবি? ছবি দেখা যাচ্ছে, করিমপুর বিধানসভা এলাকার বাড়ি বাড়ি গিয়ে দলের প্রার্থীর সমর্থনে প্রচার করছেন এলাকার প্রাক্তন বিধায়ক ও কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র। আর তাঁর পিছনে কালো শার্ট আর জিন্স পরে দাঁড়িয়ে রয়েছে এক ব্যক্তি। যিনি ছবিটি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছেন, তাঁর দাবি, মহুয়া মৈত্রের পিছনে দাঁড়িয়ে থাকা ওই ব্য়ক্তি তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী বা সমর্থন নন। তিনি নাকি করিমপুরের থানার পাড়া থানার ওসি। ছবিটি সোশ্যাল মিডিয়ার ভাইরাল হতে সময় লাগেনি। নড়চড়ে বসেছে বিজেপি নেতৃত্ব। খোদ তৃণমূল সাংসদের বিরুদ্ধে বিধিভঙ্গের অভিযোগে নির্বাচন কমিশনে নালিশ জানিয়েছে গেরুয়াশিবির।    প্রসঙ্গত, করিমপুর উপনির্বাচনে বিমলেন্দু সিংহ-কে প্রার্থী করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। তিনি শাসকদলের শিক্ষক সংগঠনের নেতা হিসেবেই পরিচিত। তাঁর বিরুদ্ধে লড়ছেন বিজেপি জয়প্রকাশ মজুমদার। 

পশ্চিম মেদিনীপুরের খড়গপুর বিধানসভাকেন্দ্রে উপনির্বাচনের প্রচারপর্বেও তৃণমূল প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিধিভঙ্গের অভিযোগ ওঠে। খড়গপুর শঙরে শাসকদলের মিছিলের  বেশ কয়েকটি ছবি প্রকাশ করেন ওই কেন্দ্রের বাম ও কংগ্রেস জোটের প্রার্থী চিত্তরঞ্জন মণ্ডল। ছবি দেখা যাচ্ছে, তৃণমূলের পতাকা পিঠে বাঁধা অবস্থায় রাস্তায় ঘুরছে উঁট! যথারীতি এক্ষেত্রে কমিশনের অভিযোগ জানিয়েছে বিরোধীরা।