পেয়াঁজ চুরির অভিযোগে প্রথমে বৃদ্ধাকে সালিশি সভায় ডেকে চোর অপবাদ দিয়ে ল্যাম্প পোস্ট-এ বেঁধে মারধর। তাতে যথেষ্ট শাস্তি না হওয়ায় নগদ ১৪ হাজার টাকা জরিমানাও করেন গ্রামের উপ প্রধান। সেই অপমানেই আত্মঘাতী হলেন ওই বৃদ্ধা। এমনই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে উত্তর দিনাজপুরের কালিয়াগঞ্জের বরুণা গ্রামে। 

স্থানীয় সূত্রে খবর, বরুণা গ্রাম পঞ্চায়েতের মাজিয়া গ্রামের বাসিন্দা ওই বৃদ্ধা প্রতিবেশীর জমি থেকে পেঁয়াজ চুরি করেছিলেন বলে অভিযোগ। সেই অভিযোগ পেয়েই ওই বৃদ্ধাকে গত সপ্তাহে সালিশি সভায় ডেকে বিচার করা হয়। অভিযোগ, বিচারের নামে ল্যাম্প পোস্ট-এ বেঁধে মারধর করে মোট ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয় বৃদ্ধাকে। বরুণা  গ্রাম পঞ্চায়েতের বিজেপি-র উপপ্রধান নিদান দেন, জমির মালিককে ১৫ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ ও সমাজকে চুরির শাস্তি হিসেবে ১০ল হাজার টাকা দিতে হবে বৃদ্ধাকে। টাকা মেটানোর জন্য আট দিন সময় দেওয়া হয়। এর পরে ওই বৃদ্ধার জামাই এসে অনেক অনুরোধ করার পরে জরিমানা কমিয়ে ১৪ হাজার টাকা করা হয়। 

আরও পড়ুন- দড়ি বেঁধে টানা হলো মহিলাকে, নির্মম অত্যাচারে অভিযুক্ত তৃণমূল নেতা

সালিশি সভায় নিগ্রহের পর থেকেই ওই বৃদ্ধা জনসমক্ষে আসছিলেন না। ঘটনার চার দিনের মাথায় রবিবার নিজের বাড়িতেই তাঁর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। ওই বৃদ্ধার ছেলে দিল্লিতে শ্রমিকের কাজ করে। তাঁর মেয়ের সোমবার রাতে কালিয়াগঞ্জ থানায় গ্রামের উপপ্রধান ননীগোপাল মণ্ডল সহ পাঁচ জনের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ দায়ের করেছেন। 

এই ঘটনা নিয়ে অবশ্য মুখে কুলুপ এঁটেছেন গ্রামবাসীরা। গ্রামের মধ্যে সালিশি সভা হলেও প্রায় সবারই দাবি তাঁরা কিছু জানেন না। অভিযুক্ত উপপ্রধান ননীগোপাল মণ্ডল সালিশি সভা ডাকার কথা স্বীকার করে নিলেও বৃদ্ধাকে মারধর বা জরিমানা করার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে কালিয়াগঞ্জ থানার পুলিশ।