ক্যাম্পাসে বিক্ষোভের মুখে পড়েছেন বিজেপি সাংসদ। উঠেছে 'গো ব্যাক', চলেছে ঘেরাও।  দিল্লির জেনএনইউ বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো হামলা হতে পারে বিশ্বভারতীতেও! তেমনই আশঙ্কা করছেন পড়ুয়াদের একাংশ। তাঁদের ভিডিও বার্তা ভাইরাল হয়ে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

ঘটনার সূত্রপাত বুধবার সকালে। নাগরিকত্ব আইন সংক্রান্ত একটি সেমিনারে যোগ দিতে বিশ্বভারতীতে যান বিজেপি-এর রাজ্যসভার সাংসদ স্বপন দাশগুপ্ত। তিনি আবার বিশ্ববিদ্যালয়ের কোর্ট সদস্য। বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে সাংসদের গাড়ি ঘিরে তুমুল বিক্ষোভ দেখান পড়ুয়ারা। কালো পতাকা দেখিয়ে গো-ব্যাক স্লোগানও দেওয়া হয়। বিক্ষোভের জেরে দীর্ঘক্ষণ আটকে থাকতে হয় সাংসদ স্বপন দাশগুপ্তকে। শেষপর্যন্ত অবশ্য সেমিনারে যোগ দেন তিনি। কিন্তু সন্ধেয় যখন সেমিনার শেষ হয়, তখন ফের সাংসদকে ঘেরাও করেন পড়ুয়ারা। ঘেরাও চলে রাত ন'টা পর্যন্ত।  টুইট করে ঘটনার তীব্র নিন্দা করেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়।

রাতে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে। ভিডিও-তে দু'জন তরুণী দাবি করেন, বিশ্বভারতী চত্বর থেকে বেরোতে পারছেন না পড়ুয়ারা। মেন গেট বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তাঁদের বক্তব্য, ক্যাম্পাসে যে জায়গায় পড়ুয়ারা আটকে পড়েছেন, সেই জায়গাটি নিরাপদ নয়। কিছু একটা ঘটতে পারে। শুধু তাই নয়, বিশ্বভারতীর গেটের বাইরে বহিরাগতরা জড়ো হয়েছেন বলেও দাবি করা হয়েছে ভিডিওটিতে। ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ার ভাইরাল হতে সময় লাগেনি।

উল্লেখ্য, দিন কয়েক আগে ফি-বৃদ্ধির প্রতিবাদে বিক্ষোভ চালাকালীন দিল্লির জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্যাম্পাসে ঢুকে তাণ্ডব চালায় মুখোশধারী বহিরাগতরা। লাঠি-রড দিয়ে হামলার চালানো হয় পড়ুয়াদের উপর। আক্রান্ত হন ছাত্র সংসদের সভানেত্রী ঐশী ঘোষ-সহ আরও অনেকে। এই ঘটনার প্রতিবাদে উত্তাল গোটা দেশ। এবিভিপি-র সমর্থকরা জেনএনইউ-তে হামলা চালিয়েছেন বলে অভিযোগ। এবার বিশ্বভারতীতে হামলার মুখ পড়বেন পড়ুয়ারাও? ভাইরাল ভিডি-কে ঘিরে শোরগোল পড়ে গিয়েছে।