আশিষ মণ্ডল, বীরভূম:  গ্রামে নিকাশি নালা আর তৈরি হল না। বরাদ্দ টাকা আত্মসাৎ করে নিলেন খোদ পঞ্চায়েত প্রধান! অভিযুক্ত প্রধান অবশ্য মুখ খোলেননি, তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তাঁর স্বামী। তিনি আবার পেশায় শিক্ষক। ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের মুরারই অঞ্চলে।

আরও পড়ুন: হাইকোর্ট নিযুক্ত কমিটির নির্দেশ, পুলিশি নিরাপত্তায় শুরু পৌষমেলার মাঠ ঘেরার কাজ

স্থানীয় সূত্রে খবর, মুরারই-এর নন্দীগ্রাম অঞ্চলের কাঠিমা গ্রামের বাসিন্দা হাসিবুল শেখ ও সালামুদ্দিন শেখ। তাঁদের বাড়ির মাঝে নিকাশিনালাটি দৈর্ঘ্যে একশোর মিটারেরও বেশি। নালাটি কংক্রিটের করার জন্য় স্থানীয় পঞ্চায়েতে আবেদন জানান সালামুদ্দিন। এক লক্ষ টাকা বরাদ্দও করা হয়। কিন্তু কাজ আর হল কই! নিকাশিনালা তৈরির টাকা পঞ্চায়েত প্রধান আত্মসাৎ করে নিয়েছেন বলে অভিযোগ।  সালামুদ্দিন শেখ বলেন, 'ভারি বৃষ্টি হলেই আমার বাড়ির সামনে ময়লা জমে। পঞ্চায়েতে আবেদন জানিয়েছিলাম। সেই আবেদনের ভিত্তিতে ওই নালার জন্য এক লক্ষ টাকা বরাদ্দ করা হয়। পরে জানতে পারলাম, কাজ না করেই ওই টাকা তুলে নেওয়া হয়েছে। আর হাসিবুল শেখে বক্তব্য়, 'নিকাশিনালা হয়নি। টাকা উঠে গিয়েছে। রাস্তা তো নোংরা হচ্ছেই, বেশি বৃষ্টি জল ঢুকে যাচ্ছে বাড়িতেও।'

আরও পড়ুন: 'প্রভাবশালী নেতাদের খুনের ছক', শান্তিনিকেতনে আগ্নেয়াস্ত্র-সহ গ্রেফতার চার বাংলাদেশি

কী বলছেন অভিযুক্ত পঞ্চায়েত প্রধান নাজরিন সুলতানা? তিনি অবশ্য এই নিয়ে মুখ খুলতে চাননি। স্বামী মহম্মদ নুরুল হোদার সাফাই,   'মার্চ মাসে বেশ কয়েকটি কাজের তালিকা বের হয়েছিল। তাতে ওই নিকাশিনালাটি ছিল। কিন্তু ভুল করে ওই নালা অন্য জায়গায় করা হয়ে গিয়েছে। নতুন করে টেন্ডার করে ফের ওই নালা গড়া হবে।' মিটিং-এ ব্যস্ত আছি বলে বিষয়টি এড়িয়ে গিয়েছেন বিডিও অমিতাভ বিশ্বাসও। ফোনও ধরেননি তিনি।