বেতন বৃদ্ধির দাবিতে সরব হয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের কয়েক হাজার পার্শ্ব শিক্ষক। বেতন বৃদ্ধির জন‍্য অনশনেও বসেছেন তারা। অনশনরত অবস্থায় ইতিমধ্যে এক পার্শ্ব শিক্ষকের মৃত্যুও হয়েছে বলে অভিযোগ। তার পরপরই অসুস্থ হয়ে পড়েন বসিরহাটের সন্দেশখালির রায়পুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পার্শ্ব শিক্ষক তাপস বর। 

বারো বছর আগে ২০০৭ সালে মাত্র স্বল্প টাকার মাইনের বিনিময়ে ঐ স্কুলে তিনি শিক্ষকতা শুরু করেন। কিন্তু এক যুগ কেটে গেলেও পর্যাপ্ত পরিমাণে বাড়েনি বেতন। স্ত্রী দময়ন্তী ও মেয়ে হিয়া সহ সুন্দরবনের বড় কলাগাছি নদীর তীরে ন‍্যাজাটে এক চিলতে ঘরে কষ্টের সংসার। নিত‍্যদিনের মূল‍্যবৃদ্ধির সাথে পাল্লা দিতে গিয়ে একেবারে হিমশিম অবস্থা হতো তাপস বাবুদের মতো রাজ‍্যের কয়েক হাজার পার্শ্ব শিক্ষকের। 

আর সেই বেতন বৃদ্ধির জন‍্য গত ১১ই নভেম্বর থেকে চলছে অনশন। অনশনের দশ দিন কাটতে না কাটতেই অনাহারে অসুস্থ হয়ে পড়েন তাপস বর। ব্রেন স্ট্রোক নিয়ে নীল রতন সরকার মেডিকেল কলেজে তাকে ভর্তি করা হয়। এখনও পর্যন্ত আশঙ্কাজনক অবস্থাতেই রয়েছেন তিনি। তার স্ত্রী তার স্বামীর দ্রুত আরোগ্য কামনার পাশাপাশি বেতন বৃদ্ধির জন‍্যেও সরব হন।

সম্প্রতি হাইকোর্টের অনুমতি পেয়ে বিকাশ ভবন ও সেন্ট্রাল পার্কের সামনে বসেছেন রাজ্যের পার্শ্ব শিক্ষকরা। পার্শ্ব শিক্ষক ঐক্য মঞ্চের অভিযোগ, তাঁদের সঙ্গে অমানবিক আচরণ করছে রাজ্য সরকার। অভুক্ত জেনেও এই মাঠের সামনেই আহারে বাংলা মেলা করা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই পার্শ্ব শিক্ষকদের আন্দোলনে গিয়েছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, পার্শ্ব শিক্ষকদের বেতন থেকে কাটমানি খাচ্ছে সরকার। শিক্ষকদের কেন্দ্রীয় সরকারের টাকার অংশটুকুও পুরো দেওয়া হচ্ছে না।