শুভজিৎ পুততুণ্ড, বারাসত-অমানবিক ঘটনার সাক্ষী থাকল হাড়োয়া! বাবা-মাকে না খাইয়ে রেখে দিনের পর দিন অত্যাচারের অভিযোগ উঠল ছেলে-বউমার বিরুদ্ধে। সমস্যা সমাধানে গ্রামে সালিশি সভাও বসে। কিন্তু তাতেও ছেলে-বউমার অত্যাচার থেকে রেহাই পাননি বাবা-মা। মঙ্গলবার রাতে বাবা-মাকে বেধড়ক মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। প্রাণ বাঁচাতে পুলিশের দ্বারস্থ হন বৃদ্ধ বাবা-মা।

আরও পড়ুন-প্রতিবেশী রাজ্য বিহারে বিজেপির জয়জয়কার, প্রভাব পড়ল নবাব নগরী মুর্শিদাবাদে

চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে বসিরহাট মহকুমার হাড়োয়া থানা এলাকার সোনারপুর শঙ্করপুর গ্রামে। জানাগেছে, বছর বাষট্টির বাবা হেমন্ত ঘোষাল ও বছর ছাপান্নর মা সবিতা ঘোষালের উপর দীর্ঘদিন অত্য়াচার চালাচ্ছে একমাত্র ছেলে রবীন ঘোষাল। বৃদ্ধ দম্পতির মেছোভেড়ি নিয়ে কিছু সম্পত্তি রয়েছে। সেই জমি তাঁর নামে লিখে দেওয়ার জন্য দিনের পর দিন চাপ সৃষ্টি করা হয় বলে অভিযোগ। কিন্তু তাঁরা না মানায় ছেলে-বউমা মিলে তাঁদের উপর অত্যাচার চালায় বলে দাবি বৃদ্ধ দম্পতির।

আরও পড়ুন-বিজেপিতে কি গুরুত্ব বাড়ছে শুভেন্দুর, ভারতী ঘোষের মুখে শুভেন্দুর প্রশংসায় বাড়ছে জল্পনা

শুধু তাই নয়, বৃদ্ধ মা-বাবা উপর ছেলে-বউমা মিলে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালানোর অভিযোগ উঠেছে। পাশাপাশি, দিনের পর দিনে তাঁদের না খাইয়ে রাখা বলেও দাবি বৃদ্ধ দম্পতির। সমস্যা এতটাই তীব্র যে ছেলে বউমার বিরুদ্ধে আগে হাড়োয়া থানায় অভিযোগ করেন তাঁরা। অন্যদিকে, গ্রামবাসীরাও সমস্যা সমাধানে সালিশি সভা করে। কিন্তু, তাতেও ফল মেলেনি। মঙ্গলবার রাতে, অত্য়াচারের মাত্রা বেড়ে যায়। ছেলে-বউমার বেধড়ক মারধরের কারনে ঘরছাড়া হন তাঁরা। অসহায় অবস্থায় অগত্য়া হাড়োয়া থানায় পুলিশের দ্বারস্থ হন বৃদ্ধ দম্পতি। অভিযোগের ভিত্তিতে গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।