সাড়া ফেলে দেওয়া জলঙ্গি গুলিবর্ষণ কাণ্ডে শেষ পর্যন্ত পুলিশের হাতে গ্রেফতার হলো ঘটনার অন্যতম অভিযুক্ত জলঙ্গির উত্তর ব্লক তৃণমূল সভাপতি তাহেরউদ্দিন মন্ডলের ভাই মহিরউদ্দিন মন্ডল। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে জলঙ্গি থানার বিশাল পুলিশবাহিনী প্রায় ২৫-৩০ কিলোমিটার দূরের ইসলামপুর থানার বাস স্ট্যান্ড এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে। 

ফের জেলেই রোজভ্যালির কর্ণধার, গৌতম কুন্ডুর জামিনের আবেদন খারিজ

শুক্রবার এই খবর চাউর হতেই জেলা জুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায়। এদিন কড়া নিরাপত্তার মধ্য়ে অভিযুক্ত মহিরউদ্দিন মন্ডলকে পুলিশ-হেফাজত চেয়ে বহরমপুর অ্যাডিশনাল চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে তোলা হয়। সন্ধ্যার শেষ পাওয়া খবরে জানা যায়, বিচারকদের জামিনের আবেদন খারিজ করে ২ দিনের পুলিশ হেফাজত মঞ্জুর করেন।  জানা গিয়েছে, পুলিশ ধরতে আসছে বুঝতে পেরে অভিযুক্ত মহিরউদ্দিন মন্ডল অন্যত্র পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিল। তার আগেই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। যদিও এখনও ঘটনার মূল অভিযুক্ত তহিরুদ্দিন মণ্ডল অধরাই রয়েছে। 

প্রতারণা মামলায় আপাতত স্বস্তি, গ্রেফতার করা যাবে না মণিরুল ইসলামকে

এর ফলে এলাকায় সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। প্রসঙ্গত, মাসখানেক আগে জননীর সাহেবনগর এলাকায় সিএএ বিরোধী একটি সর্বদলীয় প্রতিনিধিদের নিয়ে নাগরিক মঞ্চের পথ অবরোধকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকা। অভিযোগ, ওই বনধ ও অবরোধ তুলতে চেয়ে পুলিশের সামনেই গাড়ি করে এসে বিক্ষোভকারীদের উপর অভিযুক্ত তৃণমূলের ব্লক সভাপতি তাহের উদ্দিন মন্ডল ও তার সাগরেদরা এলোপাতাড়ি গুলি চালায়। আর সেই গুলির আঘাতে নিহত হন দুজন নিরীহ গ্রামবাসী।

ঋতুস্রাবের পাঠ-ক্যারাটে প্রশিক্ষণ, মিমির হাত ধরে এবার যাদবপুরে সুকন্যা

এরপরই রাস্তা আটকে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের দাবি জানায় গ্রামবাসী। যদিও এই ঘটনার পর থেকেই মূল অভিযুক্ত তহিরুদ্দিন-সহ ফেরার ছিল অভিযুক্তরা।এই ঘটনায় দায়ের করা দু’টি পৃথক অভিযোগে এখনও পর্যন্ত ছয় জন গ্রেপ্তার হয়েছে। যার মধ্যে মূল অভিযুক্ত জলঙ্গি ব্লক তৃণমূল সভাপতি তহিরুদ্দিনের ছায়াসঙ্গী সাহেবনগর পঞ্চায়েত প্রধানের স্বামী মিল্টন সরকার ও হায়দার মোল্লা নামের ঘোড়ামারা গ্রামের এক দুষ্কৃতীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সাহেবনগর পঞ্চায়েতের প্রধানের স্বামী মিলটন শেখের বিরুদ্ধে ছেলেকে খুনের অভিযোগ তুলে পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছিলেন মৃত সালাউদ্দিনের বাবা।সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই ১৪ ফেব্রুয়ারি রাতে গ্রেপ্তার করা হয় মিলটনকে।মুর্শিদাবাদের পুলিশ সুপার অজিত সিং যাদব জানান, "পুরো ঘটনা নিয়ে এই মুহূর্তে তদন্ত চলছে, এক এক করে অভিযুক্ত সকলেই গ্রেফতার হবে"।