বাড়ি ভাড়া নিয়ে দিনের পর দিন চলছিল মধুচক্র। গোপনসুত্রে সেই খবর পেয়ে মঙ্গলবার দুপুরে ঘটনাস্থলে হানা দেয় বারুইপুর মহিলা থানার পুলিশ। হাতে নাতে তিনজনকে গ্রেফতার করা হয় তিনজনকে। পুলিশের দাবি, নাবালিকাদের জোর করে মধুচক্রের কারবারে ব্যবহার করা হতো।
ঘটনাস্থল থেকে দুই নাবালিকাকেও উদ্ধার করেছে পুলিশ। 

মঙ্গলবার দক্ষিণ ২৪ পরগণার সোনারপুর থানার ঝিলপাড়া এলাকায় তল্লাশি চালিয়ে এই মধুচক্র পাকড়াও করে পুলিশ। ধৃতদের বুধবার বারুইপুর মহকুমা আদালতে তোলা হবে। পুলিশ সূত্রে খবক, গত দু' তিন বছর ধরেই সোনারপুর থানা এলাকার বাসিন্দা এক মহিলার বাড়ি ভাড়া নিয়ে সেখানে মধুচক্র চালানোর অভিযোগ উঠেছিল স্থানীয় এক দম্পতির বিরুদ্ধে। পেশায় পোল্ট্রি ব্যবসায়ী সান্টু সরদার ও তার স্ত্রী রীতা সরদারই মূলত এই মধুচক্র চালাত বলে পুলিশের দাবি। অভিযোগ, সেখানে নাবালিকাদের দিয়ে আপত্তিকর কাজ করানো হত। 

সোনারপুরের কামারাবাদের বাসিন্দা এই দম্পতিকে গ্রেফতারের পাশাপাশি এই চক্রে জড়িত থাকার অভিযোগে সুজাতা হালদার নামে আরও এক মহিলাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পুলিশের অনুমান, বাইরে থেকে ফোনে যোগাযোগ করে এই বাড়িতে লোকজন নিয়ে এসে মধুচক্র চালানো হতো। ঘটনাস্থল থেকে বেশ কিছু মদের বোতলও উদ্ধার হয়েছে। এই ঘটনার সঙ্গে আরও কেউ জড়িত আছে কি না, সে বিষয়ে তদন্ত শুরু করেছে বারুইপুর মহিলা থানার পুলিশ। বাড়ির মালিককেও জিজ্ঞাসাবাদ করবে তারা।