স্বামী এবং বোনের মৃত্যুর পরেও সেই মৃতদেহের পাশেই অবিচল ভাবে বসে আছেন এক মহিলা। ঘটনার কথা জানাজানি হতেই চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়। স্থানীয় সূত্রে খবর বেশ কিছুদিন ধরেই ওই পরিবারের কাউকে দেখতে না পেলে এলাকার বাসিন্দারা এদিন তাদের খোঁজ খবর নিতে শুরু করে। আর এই খোঁজ খবর নিতে গিয়েই প্রকাশ্যে এল এই চাঞ্চল্যকর ঘটনা। 

আরও পড়ুন, বিচারপতিদের মতবিরোধ, নারদ-মামলা গেল বৃহত্তর বেঞ্চে, আজই শুনানির সম্ভাবনা 

স্থানীয় সূত্র মারফত জানা গেছে ওই পরিবার যে বাড়িতে থাকত, সেই বাড়ির ভেতর থেকে এদিন সকালে পচা দুর্গন্ধ বেরতে থাকে। স্বভাবতই স্থানীয়দের সন্দেহ হয়। কৌতুহলের বশবর্তী হয়েই তারা ওই বাড়িতে যায়। স্থানীয় বাসিন্দারা ঘটনার কথা জানিয়ে পুলিশে খবর দেয়। এরপরেই খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে চ্যাটার্জির থানার পুলিশ। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ২১/৩ ওলাবিবি তলা লেনের তিন তলার একটি ঘরে দুটি মৃতদেহ পড়ে থাকে। মৃতদের মধ্যে একজন পুরুষ যাঁর নাম নিতিশ রঞ্জন মন্ডল(৭৫) ও একজন মহিলা, অনিতা ঘোষ(৬০) । অনিতা ঘোষ হলেন নিতিশ রঞ্জন মন্ডলের শ্যালিকা।  আর এদের দুজনের মৃতদেহ আগলে বসে রয়েছেন নিতিশ রঞ্জনের স্ত্রী পাপড়ি মন্ডল। স্থানীয়দের বক্তব্য, হাওড়ার বুকে এই ঘটনা কলকাতার রবিনসন স্ট্রিটের ঘটনার কথা মনে করিয়ে দিচ্ছে। সেইসঙ্গে করোনা আবহাওয়া কালে এই ঘটনায় এলাকাবাসী যথেষ্টই আতঙ্কিত।

আরও পড়ুন, রাজ্যে ভয়াবহ ব্ল্যাক ফাংগাসের থাবা, আক্রান্ত ৫, উদ্বেগ বাড়ল চিকিৎসকদের  


পুলিশ দেহ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে যায়। এই প্রসঙ্গে স্থানীয় বাসিন্দা অসীম মাঝি জানান এই পরিবার দীর্ঘদিন ধরে এখানে ভাড়া বাড়িতে থাকতেন। তাদের একমাত্র সন্তান দীর্ঘদিন ধরে মানসিক অসুখে ভুগছিল। সম্প্রতি তাকে চিকিৎসার জন্য এসাইলামে পাঠানো হয়। ইদানিং তাদের পরিবারের কাউকে দেখতে পান নি এলাকার মানুষ। এদিন কৌতূহল বশতই তাদের খোঁজ খবর নিতে গেলে তারা দেখতে পান তিন তলার ঘরে মৃত অবস্থায় দুজন পড়ে আছেন ও নিশীথ বাবুর স্ত্রী দুজনের মৃতদেহ আগলে বসে আছেন। মানসিক অবসাদ থেকেই এই ঘটনা ঘটেছে বলেই মনে করছেন এলাকাবাসী। যদিও এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়।