চাকরির দাবিতে একেবারে তৃণমূলের মন্ত্রীর উঠোনে বসেছিলেন উর্দু ভাষায় উত্তীর্ণ টেট পরীক্ষার্থীরা।  চাকরি তো দূর, উল্টে মন্ত্রীর বাড়িতে ধর্নায় বসায় গলাধাক্কা খেতে হল টেট উত্তীর্ণদের। দুদিনেই পুলিশ দিয়ে মন্ত্রী বাড়ি থেকে হঠানো হল চাকরিপ্রার্থীদের।

বার বার বলেও কাজ হচ্ছিল না। শেষে মন্ত্রীর বাড়ির উঠোনে চাকরির দাবিতে ধর্নায় বসেছিলেন চাকরি প্রার্থীরা। এদিন সেই ধর্নারত যুবকদের উঠিয়ে দেয় পুলিস। মন্ত্রী গোলাম রব্বানির বাড়ি থেকে চাকরি প্রার্থীদের তুলতে গেলে পুলিশের সাথে ধস্তাধস্তি হয় চাকরি প্রার্থীদের। কেন তাঁদের শান্তিপূর্ণ অবস্থান থেকে তুলে দেওয়া হচ্ছে,তা জানতে চান যুবকরা। কিন্তু তাতে কোনও কথা কানে নেয়নি পুলিশ। 

পুলিশসূত্রে জানা গিয়েছে, মোট ২৮ জনকে মন্ত্রীর বাড়িতে ধর্নায় আটক করা হয়েছে। আন্দোলনকারীরা গোটা ঘটনার জন্য মন্ত্রীকেই দায়ী করেছেন। এ বিষয়ে যোগাযোগ করতে চাইলে মন্ত্রী গোলাম রব্বানিকে বারবার ফোন করেও  পাওয়া যায়নি। তবে তৃনমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি  কানাইয়ালাল আতরওয়ালা জানিয়েছেন, আইন আইনের পথে চলবে। তবে ওই আন্দোলনকারীদের দাবির ব্যাপারে আমরা উদ্যোগ নেব।

রবিবার সকাল থেকে ইসলামপুরের উকিলপাড়ায় রাজ্যের শ্রম দফতরের প্রতিমন্ত্রী গোলাম রব্বানির বাড়ির সামনে ধর্না শুরু করে ৪০ জনের বেশি টেট উত্তীর্ণ চাকরিপ্রার্থীরা। তাদের দাবি, দীর্ঘদিন ধরে তাদের সমস্যা মেটানোর আশ্বাস দিলেও মন্ত্রী আদতে চাকরির বিষয়ে কোনও সাহায্য বা সহযোগিতা করছেন না। শুধু আশ্বাস দিয়েই চলেছেন।  কিন্তু এবারে  চাকরির নোটিফিকেশন  না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। 

মন্ত্রী তাদের সাথে দেখা করে সমস্যার সুরাহা না করলে তারা অনশন শুরু করার হুমকিও দিয়েছেন। রবিবার রাতে পুলিশের পক্ষ থেকে আন্দোলন তুলে নেবার জন্য তাদের বোঝানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয় প্রশাসন। গতকাল মন্ত্রী গোলাম রব্বানি এ বিষয়ে জানান,  আমি কাজে বাইরে রয়েছি। আন্দোলনকারীদের দাবির সাথে আমি একমত। তাদের দাবির ব্যাপারে ইতিমধ্যেই শিক্ষা দফতরের সঙ্গে কথা বলা হয়েছে।