নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে বিক্ষোভের আগুনে জ্বলছে গোটা রাজ্য। শুক্রবার থেকে রাজ্যে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে শনিবার তা চরমে পৌঁছয়। প্রতিবাদের নামে পোড়ানো হয় বাস-ট্রেন। পরিস্থিতি আরও খারাপ হলে থামিয়ে দেওয়া হয় বেশ কিছু বাস ও রেল পরিষেবা। এমন পরিস্থিতি সামাল দিতে মুখ্যমন্ত্রী শনিবার সন্ধ্যায় আর্জি জানিয়েছেন, সরকারি সম্পত্তির উপর আক্রমণ না করতে। তবে তা কোনওভাবেই বরদাস্ত করা হবে না। এমনকী সেই মত নেওয়া হবে আইনানুগ ব্যবস্থাও।

আরও পড়ুন- দেড় কিলোমিটার দূরে থানা, পর পর ট্রেন পুড়লেও পৌঁছল না পুলিশ

তবে এই পরিস্থিতির জন্য সরাসরি মুখ্যমন্ত্রীকেই দায়ী করেছেন বিজেপি কেন্দ্রীয় সচিব রাহুল সিনহা। মুখ্যমন্ত্রীর বিষয়ে টুইট করে তিনি জানিয়েছেন, "বিরোধী দল থাকাকালীন জনসাধারণের সম্পত্তি ধ্বংস করার এই রাজনীতিকেই উত্সাহিত করেছিলেন মমতা বন্ধ্যোপাধ্যায়। এখন তাঁর নিজস্ব তোষণ নীতিই, পশ্চিমবঙ্গের পরিস্থিতি বিপজ্জনক করে তুলেছে। তাঁর অতীতের এই আচরণের জন্যই তিনি বর্তমান পরিস্থিতির উপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছেন।"

শুধু এখানেই থামেননি তিনি, রাহুল সিনহা আরও জানিয়েছেন, এই দাঙ্গা দমনের জন্য মুখ্যমন্ত্রীর উচিত দাঙ্গাবাজদের চিহ্নিত করে তাদের গুলি করে হত্যা করার নির্দেশ দেওয়া। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী তা না করে দাঙ্গাবাজদের উস্কানি দিয়ে যাচ্ছে, তাই নবান্নের থেকে কিছু দুরত্বেই ১৫ টি বাস জ্বালানোর মত সাহস দেখাতে পেরেছে দাঙ্গাবাজরা।