আম্রমুকুল, বেগনি রঙের বোগেনভোলিয়া আর অকালবৈশাখী আহ্বান জানাচ্ছে বসন্তের। প্রকৃতি সেজে উঠেছে আর তাকে উসকে দিতে আসছে দোল উৎসব। আর তাই প্রকৃতির রঙে রঙ মিলিয়ে নিতে প্রস্তুত শহরবাসী। আগামী শুক্রবার শহরে অনুষ্ঠিত হবে দোল উৎসব এবং অপরদিকে শান্তিনিকেতনেও বসন্ত উৎসব নিয়ে চলছে জোর কদমে প্রস্তুতি।

আরও পড়ুন, প্রচুর জলীয়বাষ্প ঢুকছে রাজ্যে, আজ বিকেলে ফের বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টি

তবে অপরদিকে  ২০১৫ সালে পৌষমেলায় দূষণের মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ায়  ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে গ্রিন বেঞ্চে প্রথম মামলা করেন পরিবেশবিদ সুভাষ দত্ত। এবং তার প্রভাব পড়ে শান্তিনিকেতনের বসন্ত উৎসবেও। আদালত অন্যতম পর্যবেক্ষক হিসেবে সুভাষ দত্তকেই নিয়োগ করে। সুভাষ দত্তের মতে, যেহেতু এখানে প্রায় দেশ-বিদেশের সর্বস্তরের মানুষই এসে যোগদান করেন, তাই বিশৃঙ্খলা আর দূষণের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। তাই সেই সবদিক মাথায় রেখেই শান্তিনিকেতনের বসন্ত উৎসবেও তার দায় রয়েই যায়। তবে বোলপুর এখন শুধু অপেক্ষায় রবি ঠাকুরের গানে আর আবিরে মিশে যেতে। তার জন্য় চলছে শেষ পর্যায়ে প্রস্তুতি। শান্তিনিকেতনে বসন্ত উৎসব পালিত হবে এবার ৯ মার্চ।

আরও পড়ুন, প্রশাসনিক বৈঠকে ক্ষোভ প্রকাশ মুখ্যমন্ত্রীর, হাসপাতাল থেকে সরছে পুলিশ ক্যাম্প


শহর কলকাতায় একেবারে সেই শান্তিনিকেতনের মতোই দোল উৎসবের  আবহে আগামী ৬ মার্চ শুক্রবার রবীন্দ্র সঙ্গীতে আর রঙে শহরের মন ছুঁয়ে যাবে, শ্রাবনী সেন এবং 'দোহার' বাংলা ব্য়ান্ড । শুধু শহরবাসী নয়, আবির খেলার টানে সেখানে উপস্থিত থাকবে বিদেশীরাও। প্রায় ২০০ জন নৃত্যশিল্পী এই গানের সঙ্গে নাচ করবেন। এছাড়াও থাকবে হোলিকে কেন্দ্র করে বিশেষ ওডিশি এবং মণিপুরী নৃত্যের অনুষ্ঠান।  

আরও পড়ুন, পুলওয়ামার শহিদের পরিবারকে আর্থিক সাহায্য রাজ্যপালের, সস্ত্রীক গেলেন বাড়িতে