পেটের টানে কলকাতা থেকে চলে গিয়েছিলেন হুগলিতে। টাকা-পয়সা নিয়ে বচসার জেরে শেষপর্যন্ত খুন হয়ে গেলেন এক যৌনকর্মী। ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে চণ্ডীতলার গরলগাছা এলাকায়। অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন: বিদায়ী পুরপ্রধানকে 'প্রাণনাশের হুমকি', যুবকের কীর্তিতে শোরগোল ঝালদায়

অভিযুক্তের নাম দীপঙ্কর বিশ্বাস। আগে হাওড়ার আনন্দনগরের পশ্চিম শান্তিনগরে থাকত বছর পঁয়তিরিশের ওই যুবক। সম্প্রতি বাড়ি কিনে চলে আসে হুগলির চণ্ডীতলার গরলগাছা এলাকায় বেরেপাড়ায়। পুলিশ জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কলকাতার উল্টোডাঙায় এক যৌনকর্মীকে বাড়িতে নিয়ে আসে দীপঙ্কর। পারিশ্রমিক বাবদ প্রথমে তিন হাজার তিন হাজার চেয়েছিলেন ওই মহিলা। শেষপর্যন্ত যখন পাঁচ হাজার টাকা দাবি করেন, তখনই ঘটে বিপত্তি। দু'জনের মধ্যে শুরু হয় বচসা।

আরও পড়ুন: কাঁকড়া ধরতে গিয়ে ফেরা হল না, সুন্দরবন ফের বাঘের হামলায় মৃত্যু মৎস্যজীবীর

জানা গিয়েছে, টাকা না পেলে চিৎকার করে লোক জড়ো করার হুমকি দেন ওই যৌনকর্মী। এরপর তাঁর মাথায় কাটারি দিয়ে আঘাত করে দীপঙ্কর এবং রক্তাক্ত অবস্থায় ফেলে রেখে বাড়িতে তালা দিয়ে পালিয়ে যায় বলে অভিযোগ। পরে আবার বাড়িতে ফিরেও আসে সে। কিন্তু ততক্ষণে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে ওই যৌনকর্মী মারা গিয়েছেন। এদিকে তালাবন্ধ ঘরে আলো জ্বলতে দেখে সন্দেহ হয় প্রতিবেশীদের। খোঁজ নিতে গিয়ে মৃতদেহটি দেখতে পান তাঁরা। যৌনকর্মী খুনে অভিযুক্ত দীপঙ্কর বিশ্বাসকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। জেরায় সে অপরাধ স্বীকারও করেছে বলে জানা গিয়েছে।