গোটা বিশ্বে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমশই বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমানে গোটা বিশ্বের কাছে আতঙ্ক হয়ে দাঁড়িয়েছে এই মারণ রোগ। ইতিমধ্যেই এই রোগকে বিশ্ব মহামারি বলে চিহ্নিত করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হু। চিনে এই রোগের উৎপত্তি হলেও ধীরে ধীরে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পরেছে এই মারণ রোগ। পরিসংখ্যান অনুযায়ী এই মুহূর্তে বিশ্বে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১৯৮৭২৮। সেই সঙ্গে ভারতে এই মুহূর্ত অবধি আক্রান্তের সংখ্যা ১৪৭। এই মারণ রোগের হাত থেকে রক্ষার জন্য একাধিক সচেতনা অবলম্বন করার নির্দেশ দিয়েছে 'হু'। ইতিমধ্যেই সারা বিশ্ব জুড়ে বন্ধ হয়েছে বাইরের দেশের সঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থাও। যারা বাইরে ছিলেন তাঁদের বিশেষ ফ্লাইটের ব্যবস্থা করে নাগরিকদের ফিরিয়ে আনা হচ্ছে দেশে।

আরও পড়ুন- পশ্চিমবঙ্গে করোনার ছবিটা কেমন, দেখে নিন এক ঝলকে

রাজ্যেও বিভিন্ন সীমান্তে চলছে স্পেশাল স্ক্রীনিং। বহিরাজ্য থেকে আগত নাগরিক ও গাড়িগুলোকে পরীক্ষা শুরু হয়েছে সীমান্ত এলাকায়। ওড়িশার সীমান্তে স্বাস্থ্য বিষয়ক নাকা চেকিং শুরু হয়েছে গিয়েছে। লরি থেকে শুরু করে ছোট গাড়ি প্রতিটি গাড়িকে পরীক্ষা করে তবে এই রাজ্যে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। স্বাস্থ্য দপ্তর ও প্রশাসনের কর্তাদের তরফ থেকে জানানো হয়েছে করোনা সংক্রমণের ভয় না কাটা অবধি একই রকম নাকা চলবে। মঙ্গলবার আরব আমিরশাহি থেকে ফিরে আসেন হজ করতে যাওয়া পূণ্যার্থীরা। কাতারে কাতারে মুর্শিদাবাদের হরিহরপাড়া গ্রামে ফেরেন মক্কায় হজ করতে যাওয়া বাসিন্দারা। আরব থেকে হজ সেরে ফেরা পূণ্যার্থীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাই করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত স্ক্রীনিং পরীক্ষা করার জন্য হাজির হয়  বিশেষ এক মেডিকেল টিম। স্থানীয় ব্লক মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ড: আজিজুল লস্করের নেতৃত্বে ওই মেডিকেল টিম হজ ফেরত যাত্রীদের স্বাস্থ্যের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেন। 

আরও পড়ুন- করোনার জেরে বাতিল হল দুরপাল্লার একাধিক ট্রেন, জারি সতর্কতা

জানা গিয়েছে, সপ্তাহ তিনেক আগে স্থানীয় হরিহরপাড়ায় এলাকার বিভিন্ন গ্রাম থেকে পঞ্চাশের অধিক পুরুষ মহিলা হজ যাত্রী সৌদি আরবের মক্কায় যান। তার কিছুদিন পরেই করোনা ভাইরাস আতঙ্ক ক্রমশ বাড়তে শুরু করে। এর ফলেই জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য দফতরের কর্তাদের মধ্যে উদ্বেগ বাড়তে শুরু হয়। সেই কারণে রাজ্য সরকারের নির্দেশ মেনে মুর্শিদাবাদ জেলা থেকে সৌদি আরবে যাওয়া বিভিন্ন মানুষের নামের তালিকা তৈরি করা হয়। আর সেই মতো হরিহর পাড়ার এই পুণ্যার্থীদের তালিকাও খতিয়ে দেখে প্রশাসন। যাতে কোনও রকম খামতি না থাকে তাই ওই সকল মহিলা ও পুরুষ হজ যাত্রী গ্রামে ফেরত আসার পরই তড়িঘড়ি তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য বাড়িতে পৌঁছায় এই বিশেষ মেডিকেল টিম। সকল হজযাত্রীদের আপাতত নিরাপদেই আছেন বলে জানিয়েছেন ব্লকের স্বাস্থ্য আধিকারিক আজিজুল লস্কর। তিনি বলেন,' সব রকম সর্তকতা পর্যায়ের জন্যই তড়িঘড়ি এই হজযাত্রীদের শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা ব্যবস্থা করা হয়েছে। আরবে তারা বেশ কয়েকদিন আগে গিয়েছিলেন। ফলে স্বাভাবিকভাবেই এই পরীক্ষা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিল"।