বোলপুরের স্কুলে ছাত্রীদের পোশাক খুলিয়ে শাস্তি দেওয়ার ঘটনায় এবার হস্তক্ষেপ করল রাজ্য সরকার। শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, বেসরকারি ওই ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে সত্যিই কী ঘটেছিল তা জানতে রাজ্য সরকারের প্রতিনিধিদের পাঠানো হবে। এর পর প্রয়োজনে আইসিএসই বোর্ডের সঙ্গেও কথা বলবেন শিক্ষা দফতরের সচিব।' শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, 'কোনও স্কুল বা কলেজের কোনও অধ্যক্ষের নেওয়া সিদ্ধান্তের প্রভাব যদি অভিভাবক এবং ছাত্রছাত্রীদের উপরে পড়ে, তাহলে  তো আমাদের ব্যবস্থা নিতেই হবে।'

বোলপুরের একটি নামী বেসরকারি স্কুলের বিরুদ্ধে সোমবার সকালে প্রথম থেকে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রীদের পোশাক খুলিয়ে শাস্তি দেওয়া হয় বলে অভিযোগ অভিভাবকদের। অভিযোগ, স্কুলের নির্দিষ্ট ড্রেস কোড না মানার জন্যই ছাত্রীদের এই শাস্তি দেন স্কুলের প্রিন্সিপাল। 

আরও পড়ুন- ড্রেস কোড মানা হয়নি, ছাত্রীদের অর্ধনগ্ন করে শাস্তি বোলপুরের এক স্কুলের

এই প্রসঙ্গে পার্থ চট্টোপাধ্যায় এ দিন বলেন, 'সরকারি স্কুলগুলির উপরে আমাদের যেরকম নিয়ন্ত্রণ থাকে, বেসরকারি স্কুলে তা থাকে না। তা সত্ত্বেও ওখানে আমাদের দফতরের আধিকারিকদের পাঠাব। তার পর যদি মনে হয়, তাহলে শিক্ষা দফতরের সচিব আইসিএসই 

অভিভাবকদের অভিযোগ, সকালে স্কুল হওয়ায় ঠান্ডার জন্যই পড়ুয়াদের লেগিংস পরিয়ে পাঠানো হয়েছিল। তা সত্ত্বেও ড্রেস কোডের দোহাই দিয়ে সোমবার স্কুল চলাকালীন গোটা সময়টাই লেগিংস খুলিয়ে দাঁড় করিয়ে রাখা হয় ওই ছাত্রীদের। স্কুল শেষ হওয়ার পরে বিষয়টি জানতে পেরেই স্কুলে এসে বিক্ষোভ দেখান অভিভাবকরা। থানাতেও যান তাঁরা। স্কুলের প্রিন্সিপাল ঘটনার জন্য ক্ষমা চেয়ে নেন বলে খবর। দু' পক্ষের সঙ্গে কথা বলে থানা থেকে অবশ্য বিষয়টি মিটমাট করিয়ে দেওয়া হয়। তবে অভিযোগ প্রমাণিত হলে যে অভিযুক্ত প্রিন্সিপাল এবং স্কুলের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে, তা স্পষ্ট করে দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।