দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার সঙ্গে কলকাতার যোগাযোগ আরও সহজ করতে নতুন উড়ালপুল তৈরির সিদ্ধান্ত নিল রাজ্য সরকার। সোনারপুর রেল স্টেশন চত্বরের যানজট এড়ানোর জন্য সোনারপুর স্টেশন থেকে বানতলা রোড পর্যন্ত ৯০০ মিটার লম্বা দুই লেনের একটি উড়ালপুল তৈরির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সোনারপুর স্টেশন চত্বর এমনতিই খুব ঘিঞ্জি। যানবাহন, মানুষের ভিড়ে ব্যস্ত সময়ে হাঁসফাঁস অবস্থা হয়। সেই সমস্যা সমাধানে দীর্ঘদিন ধরেই উড়ালপুল তৈরির ভাবনা ছিল রাজ্য সরকারের। সেই জন্যই রাইটসকে দিয়ে সমীক্ষা করিয়েছিল কেএমডিএ। ইতিমধ্যেই সেই সমীক্ষা রিপোর্ট কেএমডিএ-কে জমা দিয়েছে রাইটস। তাতে ওই এলাকায় উড়ালপুল তৈরির বিষয়ে সবুজ সঙ্কেত দেওয়া হয়েছে। 

প্রস্তাব অনুযায়ী, নতুন এই উড়ালপুল সোনারপুর স্টেশনের কাছে চক্রবেড়িয়া থেকে শুরু হয়ে বানতলা রোড পর্যন্ত যাবে। দুই লেনের উড়ালপুলের দৈর্ঘ্য হবে প্রায় এক কিলোমিটার। এর ফলে বানতলা রোড হয়ে দ্রুত বারুইপুর, সোনারপুর হয়ে দ্রুত ইস্টার্ন বাইপাসে পৌঁছে যাওয়া যাবে। 

লোকসভা নির্বাচনের জন্য এই উড়ালপুল নির্মাণ নিয়ে সরকারি প্রক্রিয়া থমকে গিয়েছিল। ভোট মিটতেই এবার দ্রুত কাজে নামতে চাইছে রাজ্য সরকার। উড়ালপুল নির্মাণের জন্য ডিপিআর তৈরির নির্দেশ দিয়েছে নবান্ন। ডিপিআর তৈরি হলেই দ্রুত অর্থ বরাদ্দ করে উড়ালপুল তৈরির কাজে হাত দিতে চায় রাজ্য। 

সোনারপুরে এই যানজটের জন্য সাধারণ মানুষ তো বটেই, অনেক সময়ে আশঙ্কাজনক অবস্থায় থাকা রোগীদের নিয়ে যাওয়ার সময় সমস্যায় পড়ে বহু অ্যাম্বুল্যান্সও। এই উড়ালপুল তৈরি হয়ে গেলে সেই সমস্যাও অনেকটাই মিটবে। কারণ ন্যাশনাল মেডিক্যাল বা বাইপাসের লাগোয়া বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে প্রতিদিনই দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা থেকে বহু রোগীই আসেন।