আশিষ মণ্ডল, বীরভূম: পুজো দেখে বাড়ি ফেরার পথে আদিবাসী মহিলাকে গণধর্ষণ! অভিযুক্ত দু'জনকে যুবককে গ্রেফতার করল পুলিশ। বাকি তিনজন পলাতক। ধৃতদের পাঁচদিনে পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের মহম্মদবাজারের চরিচা পঞ্চায়েতের বোরাবাঁধ গ্রামে। 

আরও পড়ুন: বাসের সিটে চালকের ঝুলন্ত ও রক্তাক্ত দেহ, খুনের অভিযোগ পরিবারের

জানা গিয়েছে, নির্যাতিতার স্বামী মারা গিয়েছেন। ১৮ অগাস্ট রাতে পুজোয় অংশ নিতে পাশের গ্রামে গিয়েছিলেন তিনি। রাতে যখন পরিচিত এক যুবকের বাইকে চেপে ফিরছিলেন, তখন গ্রামে ঢোকার মুখে জঙ্গলে মাঝে পাঁচজন যুবক পথ আটকায় বলে অভিযোগ। আক্রান্ত মহিলার দাবি, গ্রামের একটি ক্লাব ঘরে আটকে রেখে রাতভর তাঁকে ধর্ষণ করা হয়। পরের দিন ছাড়া পান ঠিকই, তবে ঘটনার কথা কাউকে না জানানোর জন্য হুমকি দেয় অভিযুক্তেরা। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় বাড়ি ফিরে যান নির্যাতিতা মহিলা। ভয়ে কাউকে কিছু বলেনওনি তিনি। কিন্তু শনিবার অসুস্থ আরও বাড়লে, আর বিষয়টি চেপে রাখেননি ওই আদিবাসী মহিলা। পরিবারের লোকেদের সব খুলে বলেন। শুধু তাই নয়, বাড়ির লোকের সঙ্গে পাঁচজনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন থানায়।

আরও পড়ুন: আরজিকর থেকে উধাও রোগী, করোনা রোগীর মৃত্যু দেখেই ভয়

অভিযোগ পাওয়ার পর তৎপর হয় পুলিশ। শনিবারই কার্টিজ হাঁসদা ও জল্পা হাঁসদা নামে দু'জন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়। বাকি তিনজনের নাগাল পাওয়া যায়নি। তাদের সন্ধানে তল্লাশি চলছে।  সিউড়ি আদালতের ভারপ্রাপ্ত সরকারি আইনজীবী শুভাশিস চট্টোপাধ্যায় বলেন, “এক বিধবা মহিলা পাঁচ জন যুবকের বিরুদ্ধে গণর্ষণের অভিযোগ দায়ের করেছেন। পুলিশ দুইজনকে গ্রেপ্তার করে।  সাতদিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।'