ঘন কুয়াশায় ভয়াবহ দুর্ঘটনা। জাতীয় সড়কে গাড়ি ও ট্রলারের সংঘর্ষে প্রাণ গেল এক ব্যক্তির। গুরুতর আহত আরও একজন। দুর্ঘটনার পর আবার দুটি গাড়িতেই আগুন ধরে যায়।  চাঞ্চল্য ছড়াল পূর্ব বর্ধমানের গলসিতে।

শীতের সকালে ঘন কুয়াশায় ঢেকে ছিল দুই নম্বর জাতীয় সড়ক। জাতীয় সড়ক ধরে কলকাতা থেকে দুর্গাপুরের দিকে যাচ্ছিল এক গাড়ি ও ট্রেলার।  বর্ধমানের গলসির গলিগ্রামের কাছে ঘটল দুর্ঘটনা। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, পিছন থেকে ট্রেলারটি গাড়িটিকে ধাক্কা মারে। দুর্ঘটনার গাড়িতে আগুন লেগে যায়। চোখের নিমেষে দাউদাউ করে আগুন জ্বলতে থাকে গাড়িটিতে। অগ্নিদগ্ধ ঘটনাস্থলেই মারা যান চালক। আগুন লেগে যায় ট্রেলারটিতেও। আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। খবর দেওয়া হয় গলসি থানা ও দমকলে।  গাড়ি থেকে অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় আরও একজনকে উদ্ধার করে পুলিশ। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে ভর্তি করা হয়েছে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজে ও হাসপাতালে। ওই ব্যক্তির পরিচয় এখনও জানা যায়নি। এদিকে একটি ইঞ্জিনের চেষ্টায় যতক্ষণে আগুন নেভান দমকলকর্মী, ততক্ষণে দুটি গাড়িই ভষ্মীভুত হয়ে গিয়েছে। জ্বলন্ত গাড়ি থেকে এক যাত্রীকে উদ্ধার করতে আহত হয়েছেন এক পুলিশকর্মীও। 

আরও পড়ুন: বিয়ে দিতে অস্বীকার, প্রেমিকার নগ্ন ছবি ফেসবুকে পোস্ট প্রেমিকের

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, ঘন কুয়াশার কারণে সকালের দিকে গলসির কাছে দুই নম্বর জাতীয় সড়কে দুর্ঘটনা ঘটেছিল। তার জেরে রাস্তা অবরুদ্ধ ছিল। জাতীয় সড়কে একেবারেই শেষসারিতে দাঁড়িয়েছিল দুর্ঘটনাগ্রস্ত গাড়িটি। কিন্তু ঘন কুয়াশার কারণেই সম্ভবত গাড়িটিকে দেখতে পাননি ট্রেলার চালক।  এদিকে এই দুর্ঘটনার জেরে বর্ধমানে দুই নম্বর জাতীয় সড়কে দীর্ঘক্ষণ বন্ধ ছিল যান চলাচল।  রবিবার সকালে ঘন কুয়াশার কারণে ঝাড়গ্রামে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে পুলিশের একটি বাস। নয়াগ্রামে নিয়ন্ত্রণে হারিয়ে রাস্তার পাশে ধানজমিতে উল্টে যায় বাসটি। কম-বেশি চোট পান চালক ও পাঁচ পুলিশকর্মী।