চাকরি প্রার্থীদের জন্য সুখবর! চলতি বছর হতে পারে টেট পরীক্ষা, ফল প্রকাশের পর বললেন গৌতম পাল

| Feb 10 2023, 05:42 PM IST

Exam

সংক্ষিপ্ত

২০২৩ সালে আবারও হতে পারে টেট পরীক্ষা। টেটের ফল প্রকাশের পর বললেন প্রাথমিক শিক্ষা পর্যদের সভাপতি গৌতম পাল,

 

চাকরি প্রার্থীদের জন্য সুখবর। ২০২২ সালে টেট পরীক্ষার ফল প্রকাশে করেই প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সভাপতি গৌতম পাল জানিয়ে দিলেন ২০২৩ সালে আবারও হতে পারে টেট পরীক্ষার। তবে পর্যদ বছরে দুই বার টেট পরীক্ষার মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগ করতে চায়। তবে সেই ক্ষমতা শুধুমাত্র পর্যদের হাতে নেই বলেও জানিয়ে দেন তিনি।

এদিন পর্ষদের সভাপতি গৌতম পাল বলেন, 'টেট পরীক্ষার জন্য আমাদের পশ্চিমবঙ্গ সরকারের শিক্ষা দফতরের কাছে প্রস্তাব পাঠাতে হয়। কারণ পরীক্ষা পর্যদ নিতেও যাবতীয় পরিকাঠামোর ব্যবস্থা করে সরকার। টেট পরীক্ষা নিয়ে আগে পর্যদের অ্যাড হক কমিটি সিদ্ধান্ত নেবে। তারপর শিক্ষা দফতরের কাছে প্রস্তাব পাঠান হবে।' তিনি জানিয়েছেন শিক্ষা দফতর অনুমিত দিলেই তারপরই পরবর্তী টেট পরীক্ষার দিন ঘোষণা করা হবে। তিনি আরও জানিয়েছেন ২০২৩ সালে যদি টেট পরীক্ষা হয় তাহলে তা হবে বছরের দ্বিতীয়ার্ধে। পুরো প্রক্রিয়াই হবে নিয়ম মেনে।

Subscribe to get breaking news alerts

শুক্রবার ২০২২ সালে টেট পরীক্ষার ফল প্রকাশ করে পর্যদ। ৬ লক্ষ ২০ হাজার পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে দেড় লক্ষ পরীক্ষার্থী। এই দেড় লক্ষ পরীক্ষার্থা আরও লক্ষ লক্ষ পরীক্ষার্থীর সঙ্গে জুড়লেন, যারা নিয়োগের অপেক্ষায় বসে রয়েছেন। ২০২২ সালে টেট পরীক্ষা হয়েছিল কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে। তবে প্রশ্ন একটাই শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলার কারণে বর্তমানে ব্যাহত হয়েছে নিয়োগ প্রক্রিয়া। নিয়োগের অপেক্ষায় রয়েছে প্রচুর পরীক্ষার্থী। এই অবস্থায় আরও যদি টেট পরীক্ষা নেওয়া হয় তাহলে চাকরি প্রার্থীর সংখ্যা বাড়বে। কিন্তু গৌতম পাল আশ্বাস দিয়েছেন এখন থেকে সবই হবে আইন মেনে।

শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি এই রাজ্যের একটি বড় দুর্নীতি। ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকজন শিক্ষককে চাকরি খোয়াতে হয়েছে। আইন আদালত হচ্ছে। তদন্তে নেমেছে ইডি, সিবিআই-এর মত কেন্দ্রীয় সংস্থা। গ্রেফতার করা হয়েছে তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কেও। তাঁর বান্ধবীর ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হয়েছে কোটি কোটি টাকা। প্রাথমিক অনুমান নিয়োগ মামলায় বেআইনভাবে টাকা পয়সা লেনদেন হয়েছে। এদিনই কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি গ্রুপ ডি নিয়োগ মামলায় ১৯১১ জনের সুপারিশপত্র প্রত্যাহারের নির্দেশ দিয়েছেন। পাশাপাশি এসএসসির তৎকালীন চেয়ারম্যান সুবীরেশ ভট্টাচার্যকেও সেই মামলার সঙ্গে জুড়ে দিয়েছেন।

আরও পড়ুনঃ

নিয়োগ দুর্নীতি হয়েছিল কার কথায়? অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের নির্দেশ নাম জানাতে হবে সুবীরেশ ভট্টাচার্যকে

গ্রুপ-ডি পদে চাকরি গেল ১,৯১১ জনের, বেআইনি নিয়োগের কথা স্বীকার করলেন এসএসসি-র আইনজীবী

রাহুল গান্ধীর ঢালাও প্রশংসা, শত্রুঘ্নর টুইটে বিব্রত তৃণমূল কংগ্রেস