ভরদুপুরে হাসপাতালে এক সদ্যোজাতকে আছাড় মেরে খুন করল এক মহিলা। সে আবার সম্পর্কে ওই শিশুটি মাসি। ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে। অভিযুক্তকে আটক করেছে পুলিশ। তবে কেন  ওই মহিলা এমন কাণ্ড ঘটাল, তা স্পষ্ট নয়। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করছেন তদন্তকারীরা।

সন্তান তো সব দম্পতিই চান। তবে পুত্রসন্তানের কদরই বেশি।  অনেক পরিবারেরই এখন রীতিমতো অবহেলার শিকার হতে হয় মেয়েরা। এমনকী, স্রেফ কন্যাসন্তানের জন্ম দেওয়ার কারণেই অনেক সময় শ্বশুরবাড়িতে অত্যাচারিত হন গৃহবধূরা। ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে কিন্তু সদ্যোজাত পুত্রসন্তানকে সকলের চোখের সামনে নৃশংসভাবে খুন করল তাঁরই এক আত্মীয়! পৃথিবীর আলো দেখার পরেই কেন মরতে হল ওই শিশুটি?  তা এখনও স্পষ্ট নয়।

ঘটনার সূত্রপাত সোমবার দুপুরে।  শনিবার যখন এক সন্তানসম্ভবা মহিলাকে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে আনা হয়, তখন প্রসব যন্ত্রণার ছটফট করছিলেন তিনি।  বাসন্তী সর্দার নামে এক মহিলাকে হাসপাতালে ভর্তি করে নেন চিকিৎসকরা।  হাসপাতাল সূত্রে খবর, সোমবার সেদিন ভর্তি হয়েছিলেন, সেদিনই এক ফুটফুটে পুত্রসন্তানের জন্ম দেন বাসন্তী। এদিকে বোনের সঙ্গে হাসপাতালে এসেছিলেন বাসন্তীর দিদি মালতী।  

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, সোমবার দুপুরে আচমকাই হাসপাতালে ওয়ার্ডে ঢুকে বাসন্তীর কাছ থেকে শিশুটিকে ছিনিয়ে নেয় মালতী। কিছু বুঝে ওঠার আগে শিশুটি তুলে মাটিতে আছাড় মারে সে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু  হয় সদ্যোজাতের।  চোখের সামনে এমন ঘটনায় শিউরে ওঠেন হাসপাতালে অন্যন্য রোগী ও তাঁদের পরিবারের লোকেরা। চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে হাসপাতালে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় ক্যানিং থানার পুলিশ। অভিযুক্ত মহিলাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।