বুদ্ধদেব পাত্র, সংবাদদাতা- যৌন হেনস্থাই হোক কিংবা বাল্যবিবাহ, বাদ যাচ্ছে না পারিবারিক হিংসাও! প্রান্তিক জেলা পুরুলিয়ায় সামাজিক কুসংস্কারের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পথ দেখাচ্ছেন রাজ্য় পুলিশের 'স্বয়ংসিদ্ধা'রা। মানুষকে সচেতন করতে জেলার সর্বত্র প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন মহিলার পুলিশকর্মীরাই।   শুক্রবার সচেতনতামূলক প্রচার চলল পুরুলিয়ার মফঃস্বল থানার আনাই জামবাদ পি এস ডি জে হাই স্কুলের। শিক্ষিকাদের মতোই পড়ুয়াদের ক্লাস নিলেন মহিলা থানার ওসি পারমিতা সমাদ্দার। প্রোজেক্টরের সাহায্যে শিশুপাচার ও যৌন হেনস্থা বিষয়টি পড়ুয়াদের বুঝিয়ে দিলেন তিনি। শুধু তাই নয়, বিপদে পড়লে কীভাবে থানায় অভিযোগ জানাতে হবে, প্রশ্নোত্তর পর্বে তাও জানিয়ে দিলেন ওসি স্বয়ং। 

জঙ্গলমহলের জেলা পুরুলিয়ায় নারী বা শিশুপাচারের সমস্যা হয়তো ততটা নেই। কিন্তু হতদরিদ্র পরিবারে আঠেরো পেরোনোর আগেই কিশোরী কিংবা বালিকাদের বিয়ের দিয়ে দেওয়ার ঘটনা আকছারই ঘটে। বিয়ের পরে শ্বশুরবাড়িতে গিয়েও অত্যাচারের শিকার হতে হয় অনেকেই। আরও নানা ধরনের কুসংস্কারের বলি হতে হয় মেয়েদের। জেলায় মহিলা পুলিশকর্মীরা যেভাবে প্রচার চালাচ্ছেন, তাকে স্বাগত জানিয়েছেন আনাই জামবাদ পি এস ডি জে হাই স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক উত্তর কুমার রজক।  স্কুলের পরিচালক সমিতির সদস্য যোগেন্দ্র নাথ মাহাতো বলেন, 'আমাদের পিছিয়ে পড়া গ্রামে পুলিশের উদ্যোগে এই ধরনের সচেতনতামূক প্রচার আগে কখনও হয়নি। এতে কম বয়সে বিয়ে যেমন আটকানো যাবে,তেমনি প্রলোভনে ফাঁদে মেয়েদের পাচার হওয়ার মতো ঘটনাও কমবে। প্রয়োজনে স্কুলের তরফেও অভিভাবকদের বোঝানো হবে।' উল্লেখ্য, রাজ্য পুলিশের 'স্বয়ংসিদ্ধা' প্রকল্পের মাধ্যমে কুসংস্কারমুক্ত জেলা গড়ার চ্যালেঞ্জ নিয়েছেন পুরুলিয়া মহিলা থানার ওসি পারমিতা সমাদ্দার-সহ বেশ  কয়েকজন মহিলা পুলিশ আধিকারিক।