আয়লা, বুলবুল, ফণী.... বারবার ঝড়ের মুখে পড়তে হয় তাঁদের। কিন্তু আমফানের ভয়াবহতা নাড়িয়ে দিয়েছে সকলকেই। প্রকৃতি তুষ্ট রাখতে এবার গঙ্গাপুজো করলেন স্থানীয় বাসিন্দারা। দক্ষিণ ২৪ পরগণার ক্যানিং-এর ঘটনা।

আরও পড়ুন: তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষে রণক্ষেত্র ভগবানগোলা, চলল ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ

বিজ্ঞান কিংবা প্রযুক্তি যতই উন্নত হোক না, প্রকৃতির কাছে আজও মানুষ অসহায়। করোনা আবহের মাঝে যে ধেয়ে আসছে ঘুর্ণিঝড় আমফান, তার আগাম পূর্বাভাস ছিল। উপকূলবর্তী এলাকায় পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিল প্রশাসন। কিন্তু ঝড়ের তাণ্ডব ঠেকাবে, এমন সাধ্য কার! আমফানে সবচেয়ে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগণায়।  কাকদ্বীপ, কৈখালি, কুলতুলি, পাথরপ্রতিমা-সহ বিভিন্ন এলাকায় নদীর স্রোতে ভেঙে পড়েছে বাঁধ। গৃহহীন হয়েছেন বহু মানুষ, নষ্ট হয়েছে জমির ফসল। ভেসে গিয়েছে কাঁচাবাড়ি, রাস্তাঘাট, এমনকী সেতুও! ভয়াবহ সেই ধ্বংসলীলায় ঘুম উড়িয়ে গিয়েছে স্থানীয় বাসিন্দাদের।

আরও পড়ুন: সংক্রমণের থেকে বাঁচতে 'করোনা পুজো', আজবকাণ্ড রায়গঞ্জে

নদী যে আর রুষ্ট না হয়, বাঁধ যেন প্লাবন না আসে। সেই কারণেই সোমবার দক্ষিণ ২৪ পরগণার ক্যানিং-এর নিকারীঘাটা পঞ্চায়েত এলাকা ধূমধাম করে গঙ্গাপুজো করলেন স্থানীয় মহিলারা। কাঁধে করে নিজেরাই বয়ে আনলেন প্রতিমা। তারপর দীর্ঘক্ষণ ধরে চলল পুজোপাঠ।