ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় যশ। স্থলভাগে আছড়ে পরার আগেই বিভিন্ন এলাকা জুড়ে চলছে তান্ডব। ভোর রাত থেকেই বিভিন্ন উপকূলবর্তী এলাকা ছাপিয়ে যেতে শুরু করে প্রবল জলোচ্ছ্বাসে। মঙ্গলবার থেকেই যশের দাপট নজরে আসে। একের পর এক এলাকাতে বিক্ষিপ্ত ঝড়, টর্নেডো জানান দেয় ঝড়ের আগাম বার্তা। বুধবার থেকেই পাল্টে যায় পরিস্থিতি। উপকূলবর্তী এলাকাতে বেড়েছে হাওয়ার দাপট। পাশাপাশি বাঁধ ছাড়িয়ে সমুদ্রের জল ঢুকে একাধিক এলাকায় নেমে এসেছে বিপর্যয়।

যতই এগিয়ে আসছে যশ ততই ভয়ানক ছবি ধরা পড়ছে বিভিন্ন জায়গায়। বর্তমানে ওড়িশার ধারমার খুব কাছে চলে এসেছে যশ। দিঘা-বালেশ্বর থেকে মাত্র ৮০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে বর্তমানে এই ঝড়। ইতিমধ্যেই পশ্চিমবঙ্গ এবং ওড়িশার উপকূলবর্তী এলাকায় লাল সতর্কতা জারি হয়েছে। আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস অনুযায়ী বুধবার দুপুরেই স্থলভাগে আছড়ে পড়বে যশ।

পূর্ব মেদিনীপুরে ইতিমধ্যেই জেলা শাসক জারি করেছেন সতর্কতা। অতিরিক্ত শক্তি বাড়ানোর ফলে ইতিমধ্যেই ৮৮ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা বেগে বইছে ঝড়। পাশাপাশি কলকাতাতে ৬২ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টাতে ঝড় বয়ে যাওয়ার রেকর্ড ইতিমধ্যেই সামনে এনেছে আবহাওয়া দফতর। বিভিন্ন এলাকাতে চলছে কড়া নজরদারি। নবান্ন থেকে প্রতি মুহূর্তে নজর রাখছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী।