ঝাড়খণ্ড বিধানসভা নির্বাচনের ভোট গণনা চলছে। সবে কয়েক রাউন্ডের গণনা শেষ হয়েছে। কিন্তু নির্বাচন কমিশন থেকে গণনার যে ট্রেন্ড প্রকাশ করা হয়েছে, তাতে মোটামুটিভাবে বিজেপি ও তার সঙ্গীদের হারের ছবিটা স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। কিন্তু তারপরেও এখনই আশা ছাড়তে নারাজ বিজেপি। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাস এখনও বলছেন, শেষ পর্যন্ত বিজেপির নেতৃত্বেই সরকার হবে ঝাড়খণ্ডে।

এদিন তিনি সকালের ভোট ট্রেন্ড দেখে বলেছেন, এটা শুধুই ফলাফলের প্রবণতা, চূড়ান্ত ফলাফল নয়। আরও কয়েক দফা গণনা বাকি। তাই এখনই প্রবণতা দেখে ফলাফল সম্পর্কে মন্তব্য করা সঠিক নয়। ভোটের আগেই বিজেপি নেতাদের প্রতি দুর্নীতির অভিযোগ তুলে গেরুয়া শিবির ছেড়েছিলেন বিশিষ্ট বিজেপি নেতা সর্যু রাই। কিন্তু, তাঁর দলত্যাগ বিজেপির ক্ষতির কারণ নয় বলেই দাবি করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

আরও পড়ুন - LIVE UPDATE, ঝাড়খণ্ড নির্বাচনের ফল, সরকার গড়ার সংখ্যা ছুঁয়ে ফেলল জোট

আরও পড়ুন - পোস্টার বলছে হেমন্ত আব কি বার হ্যায়, গণনা বলছে না, বড় ধাক্কা জোটের

আরও পড়ুন - স্পষ্ট হচ্ছে জনাদেশ, ঝাড়খণ্ড-ও হাতছাড়ার পথে, হার মেনে নিলেন বাবুলাল

বরাবর জামশেদপুর পশ্চিম কেন্দ্র থেকে ভোটে দাঁড়ালেও, এইবার তিনি সরাসরি জামশেদপুর পূর্ব কেন্দ্রে মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাসের বিরুদ্ধেই দাঁড়িয়েছিলেন। প্রাথমিক ভাবে রঘুবর দাস, সর্যু রাই-এর থেকে ১৪৪৯ ভোটে এগিয়ে থাকলেও, সর্বশেষ খবর অনুযায়ী সর্যু রাই ৭৭১ ভোটে এগিয়ে আছেন। তারপরেও সর্যু রাই-এর বিদ্রোহে দলের ক্ষতি হয়নি বলেই দাবি মুখ্যমন্ত্রীর। নিলে তিনি এত ভোট পেতেন না বলে দাবি করেছেন তিনি (সেই সময় তিনি এগিয়ে ছিলেন)। রঘুবর দাস সাফ জানিয়েছেন, বিজেপির নেতৃত্বেই রাজ্যের পরবর্তী সরকার গঠন হবে। সম্পূর্ণ ফল বের হওয়ার পর তিনি রাঁচিতে সাংবাদিক সম্মেলন করবেন বলে জানিয়েছেন। ।

অন্যদিকে ঝাড়খণ্ডের প্রাক্তন মুখ্য়মন্ত্রী তথা জেভিএম (পি) প্রধান বাবুলাল মারান্ডি কার্যত এই হার মেনে নিয়েছেন। তিনি নিজে ধানওয়ার আসনে অনেকটাই এগিয়ে আছেন। কিন্তু, তিনি জোটের ফল আশানুরূপ নয় বলেই জানিয়েছেন তিনি। জনাদেশ তাঁদের বিরুদ্ধে গিয়েছে বলেই মনে করছেন বাবুলাল।