ঝাড়খন্ড মুক্তি মোর্চার নেতা হেমন্ত সোরেন দিন কয়েক আগেই নির্বাচনী প্রচারে বিজেপি নেতারা গেরুয়া পরে নারীদের ইজ্জত লুন্ঠন করে বলে তোপ দেগে সমালোচিত হয়েছিলেন। এদিন ভোট গণনা শুরুর আগেই রাঁচিতে জেএমএম কর্মী সমর্থকরা তাঁকেই পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী চেয়ে পোস্টার ফেললেন। কিন্তু প্রথম রাউন্ডের গণনার ট্রেন্ড কিন্তু বলছে, জিততে নাও পারেন এই জেএমএম নেতা।

এদিন, রাঁচির বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় হেমন্ত সোরেনের ছবি দিয়ে পোস্টার দেওয়া হয়েছে। তাতে লেখা, 'ঝাড়খণ্ড কি পুকার হ্যায় গোটবন্ধন কী সরকার হ্যায়। হেমন্ত আব কি বার হ্যায়'। বুথ ফেরত সমীক্ষা জানিয়েছে ঝাড়খণ্ড রাজ্যটি হারাতে চলেছে বিজেপি। সেখানে কংগ্রেস-ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চারই জেতার সম্ভাবনা।

সোমবার সকাল আটটা থেকে ভোটগণনা শুরু হয়েছে। প্রথম রাউন্ডের গণনা শেষ হয়েছে। বিজেপি একটু পিছিয়ে থাকলেও, জোটের সঙ্গে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হচ্ছে। নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, ৪৬ আসনের ট্রেন্ডে বিজেপি এগিয়ে ১৭ টি আসনে, কংগ্রেস ৭টি, জেএমএম ১৩টি, আরজেডি ৩টি, এজেএসইউ এবং বিএসপি ২টি করে এবং সিপিআই (এমএল) ১টি আসনে এগিয়ে।

আরও পড়ুন - LIVE UPDATE, ঝাড়খণ্ড নির্বাচনের ফল, প্রথম রাউন্ডের গণনা শেষে পিছিয়ে হেমন্ত সোরেন

কিন্তু দুমকা কেন্দ্রে, হেমন্ত সোরেন নিজে অনেকটাই পিছিয়ে পড়েছেন। এই কেন্দ্রে প্রথম রাউন্ডের গণনার শেষে বিজেপির লুইস মারান্ডি ৩২০৯ ভোটে এগিয়ে গিয়েছেন। যদিও এটা একেবারেই প্রাথমিক গণনা, কিন্তু সকাল যদি সারা দিন কেমন যাবে বলে দেয়, সেই ক্ষেত্রে বলাই যায় হেমন্ত সোরেনের জন্য বড় ধাক্কা আসতে পারে। তবে বারহাইত কেন্দ্রে তিনি ৬৬৪ ভোটে এগিয়ে আছেন বিজেপির সাইমন মালতোর থেকে।