এবার আর গণ আন্দোলন নয়, রাজনীতির আঙিনায় প্রবেশ করতে চলেছেন দিল্লি সীমান্তে আন্দোলনরত কৃষকরা। আন্দোলনরত বেশ কয়েকটি কৃষক সংগনকে নিয়ে গঠিত সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা বা এসকেএম (SKM) মঙ্গলবার জানিয়েছে, তারা সক্রিয়ভাবে বিজেপি এবং তার মিত্রশক্তিগুলির বিরুদ্ধে নির্বাচনী-রাজ্যগুলিতে প্রচার করবে। এদিন, এসকেএম-এর সাধারণ পরিষদের সভায় এই পদক্ষেপের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। পরে সাংবাদিক সম্মেলন করে এই কথা ঘোষণা করেন স্বরাজ ভারত দলের সভাপতি যোগেন্দ্র যাদব।

আগামী ১২ মার্চ তারিখে কলকাতার বুকে এক বিশাল জনসভার আয়োজন করতে চলেছে সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা। সেখানে মোর্চার সব নেতারাই উপস্থিত থাকবেন। আর সেই সভা থেকেই বিজেপি বিরোধী প্রচার শুরু করবেন কেন্দ্রীয় সরকারের তিন কৃষি আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলনরত কৃষকরা। বাংলার পাশাপাশি অসম, কেরল, তামিলনাড়ু, এবং পুদুচেরি - এই ৫ রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে র বিধানসভা নির্বাচন আসন্ন। এই প্রতিটি রাজ্যেই প্রচার চালাবে কৃষকরা।

বাংলায় বিজেপির বিরোধী রয়েছে দুই পক্ষ - তৃণমূল কংগ্রেস এবং বাম-কং-আইএসএফ জোট। কোন পক্ষকে সমর্থন দেবেন কৃষকরা? যোগেন্দ্র যাদব জানিয়েছেন তাঁরা কখনই কোনও বিশেষ দল বা জোটের পক্ষে প্রচার চালাবেন না। তাঁরা মানুষের কাছে আবেদন করবেন, বিজেপি এবং তার সহযোগী দলগুলি, যারা কৃষকবিরোধী আইনগুলি কার্যকর করেছে এবং কৃষকদের অসম্মান করেছে, তাদের শাস্তি দেওয়ার জন্য। ৫টি রাজ্যেই তারা যাবেন এই প্রচার নিয়ে।

হঠাৎ, রাস্তার গণআন্দোলন ছেড়ে রাজনীতির মাঠে প্রচারে কেন কৃষকরা? যোগেন্দ্র যাদব বলেছেন, ক্ষমতাসীন দলের নেতারা কেবল একটি ভাষা বোঝেন। ন্যায়বিচার, সংবিধান এবং ঠিক-ভুলের ভাষা তাঁদের মাথায় ঢোকে না। তাঁরা বোঝেন শুধু ক্ষমতা, ভোট, আসন, নির্বাচনের ভাষা। তাই, কৃষকরা এখন তাঁদের সঙ্গে সেই ভাষাতেই কথা বলবেন বলে ঠিক করেছেন। ভোটের ময়দানে বিজেপির ক্ষতি করলে, কৃষকদের কথা শুনতে চাইবে কেন্দ্র, এমনটাই মনে করছেন তাঁরা। আর তাই ভোটের নিরিখে বিজেপির ক্ষতি করার আবেদন নিয়ে তাঁরা ভোটারদের কাছে যাবেন।