শুক্রবার সরকারিভাবে বাংলার বিধানসভা নির্বাচন ২০২১ (West Bengal Assembly Elections 2021)-এর দামামা বাজিয়ে দিল ভারতের নির্বাচন কমিশন (Election Commission off India)। ২৭ মার্চ থেকে শুরু হচ্ছে ভোট। কাজেই নির্বাচনের আগে ঠিক একমাস বাকি রয়েছে। এই সময় বিভিন্ন দলই বিভিন্ন ছলে-বলে-কৌশলে ভোট নিজেদের ঝুলিতে আনার চেষ্টা করে। আদর্শ ভোট বিধি  ভাঙার এইসব ঘটনা এতটাই চুপিসাড়ে হয়, অনেকসময় প্রশাসনের পক্ষে তা চোখে পড়ে না। কিন্তু, সাধারণ মানুষের চোখে এবং মোবাইল ক্যামেরায় ধরা পড়ে যায় তা। এই কথা মাথায় রেখেই নির্বাচন কমিশন এনেছে সি-ভিজিল (cVIGIL) অ্যাপ।

২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনের প্রাক্কালেই এই মোবাইল অ্যাপ চালু করেছিল ভারতের নির্বাচন কমিশন। তারা বলেছিল আদর্শ ভোট বিধি (MCC) লঙ্ঘনের অভিযোগগুলি সমম্পর্কে দ্রুত তথ্য পাওয়া এবং সেগুলি খুঁজে বের করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার অভাব রয়েছে। এর জন্য অনেক ক্ষেত্রেই নির্বাচন কমিশনের স্কোয়াডরা নির্বাচন কমিশনের জারি করা আদর্শ আচরণবিধি বাস্তবায়িত করার দায়িত্ব পালন করতে ব্যর্থ হন। এছাড়া, অভিযোগগুলি সম্পর্কে কোনও নথি, ছবি বা ভিডিওর মতো প্রমাণের অভাবে অভিযোগের সত্যতা প্রতিষ্ঠা করা যা না। এই অভাবগুলি দূর করার জন্য়ই এই অ্যাপ চালু করা হয়েছে।

কী এই সি-ভিজিল অ্যাপ? এই  মোবাইল অ্যাপে নাম, ঠিকানা, রাজ্য, বিধানসভা আসন-এর মতো তথ্য দিয়ে নাম নথিভুক্ত করতে হয়। তারপর এই অ্যাপের মাধ্যমেই ছবি বা ভিডিও তুলে সরাসরি কমিশনের কাছে অভিযোগ জানাতে পারেন যে কোনও মানুষ। যেখান থেকে ওই ছবি বা ভিডিও তোলা হচ্ছে, স্মার্টফোনের জিপিএস-এর মাধ্যমে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই ওই ছবি বা ভিডিওর নির্ভুল ভৌগলিক অবস্থান পেয়ে যায় নির্বাচন কমিশন। তারসঙ্গে ঘটনাটির সম্পর্কে বিশদ তথ্য জানানোর সুযোগও রয়েছে।

কী কী বিষয়ে অভিযোগ জানানো যাবে?

নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে মোট ১৫টি বিষয়ে এই অ্যাপের মাধ্যমে অভিযোগ জানাতে পারবেন সাধারণ মানুষ। এই বিষয়গুলি হল -

১. অর্থ বিতরণ

২. অন্যান্য উপহার / কুপন বিতরণ

৩. মদ বিতরণ

৪. অনুমতি ছাড়া পোস্টার / ব্যানার লাগানো

৫. আগ্নেয়াস্ত্র প্রদর্শন, ভয় দেখানো

৬. বিনা অনুমতিতে যানবাহন বা কনভয়

৭. টাকা দিয়ে খবর তৈরি

৮. সম্পত্তির অবক্ষয়

৯. ভোটের দিন ভোটারদের কেন্দ্রে পৌঁছে দেওয়া

১০. ভোটকেন্দ্রের ২০০ মিটারের মধ্যে প্রচার চালানো

১১. নিষিদ্ধ সময়ে প্রচার চালানো

১২. ধর্মীয় বা সাম্প্রদায়িক বক্তৃতা / বার্তা

১৩. অনুমোদিত সময়ের বাইরে স্পিকার ব্যবহার করা

১৪. বাধ্যতামূলক ঘোষণা ছাড়া পোস্টার লাগানো

১৫. জনসভায় নিয়ে যাওয়া

অ্যাপটির অপব্যবহার রোধ করতে এই অ্যাপে বেশ কয়েকটি সতর্কতামূলক বৈশিষ্ট্য যোগ করা হয়েছে। সি-ভিজিল-এর মাধ্যমে ব্যবহারকারী শুধুমাত্র তাঁর রাজ্যের ঘটনাই রিপোর্ট করতে পারবেন। ব্যবহারকারী কোনও ছবি বা ভিডিও রেকর্ড করার পর ৫ মিনিট সময় দেওয়া হয় অভিযোগ জানানোর জন্য। অন্য় অ্যাপে  তোলা ছবি / ভিডিও আপলোড করা যায় না। এই অ্যাপে তোলা ছবি / ভিডিও ফোনে সংরক্ষণ করা যায় না। একই ব্যক্তিকে দ্বিতীয় অভিযোগ জানাতে গেলে অন্তত ৫ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। জেলা কন্ট্রোলারই একই ঘটনা বা অপ্রাসঙ্গিক মামলা বাদ দিয়ে দেন।