একাত্তরের পর থেকে বাংলাদেশ সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে কোনও অনুপ্রবেশ হয়নি। এমনটাই দাবি করলেন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান। শুধু তাই নয়, জিডিপি তথা অর্থনীতি নিয়ে ভারতকে খোঁটা দিতেও ছাড়েননি তিনি। তবে বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এনআরসি  এবং সিএএ নিয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি, 'ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়' বলে এড়িয়ে গিয়েছেন।

সম্প্রতি, পশ্চিমবঙ্গ সফরে এসে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেছিলেন, সংসদে পাস হওয়ার পর সিএএ আইন কার্যকর করা শুধু সময়ের অপেক্ষা। কোভিড -১৯ এর কারণে কিছুটা দেরি হচ্ছে। সমস্ত অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের বের করে দেওয়া হবে বলে হুঙ্কার ছেড়েছিলেন তিনি।

বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান

এই বিষয়ে নিউজ ১৮-কে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান দাবি করেছেন, দেশভাগের সময় ওইপার থেকে বহু মানুষ ভারতে এসেছিলেন। কিন্তু, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে কেউ অবৈধভাবে ভারতে আসেনি। তাঁর মতে বাংলাদেশ থেকে ভারতে আসার কোনও কারণই নেই। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, জিডিপির প্রবৃদ্ধি এবং মাথাপিছু আয় খুবই ভাল। জীবনযাত্রার মানও বাংলাদেশে বেশ ভাল। তাই, বাংলাদেশীদেরা অবৈধভাবে ভারতে আসার কোনও কারণই নেই। উল্লেখ্য, অতি সম্প্রতি অর্থনৈতিক পর্যবেক্ষকরা জানিয়েছেন মাথাপিছু জিডিপি বৃদ্ধিতে বাংলাদেশের থেকেও পিছিয়ে পড়তে চলেছে ভারত।

আরও পড়ুন - কেন মনমোহনকেই প্রধানমন্ত্রী করেছিলেন সনিয়া, ফের ঝড় তুলল ওবামা-র স্মৃতিকথা

 

আরও পড়ুন - 'পিসি নিশ্চিন্ত থাকুন, উত্তরবঙ্গে উঠবে গেরুয়া ঝড়' - কাজ শুরু করে দিলেন অমিত মালব্য

 

আরও পড়ুন - সরকারের নির্দেশ মানল না কর্পোরেশন, মুম্বইয়ে এই বছর আর খুলছে না স্কুল

তবে, জাতীয় নাগরিকপঞ্জী বা এনআরসি এবং নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন বা সিএএ সম্পূর্ণ ভারতের বিষয় বলেই জানিয়েছেন তিনি। আর যেহেতু '১৯৭১ সালের পর থেকে ভারতে কোনও বাংলাদেশী অনুপ্রবেশ ঘটেনি', তাই এই বিষয় নিয়ে বাংলাদেশীদের ভাবনাও নেই বলে দাবি করেছেন আসাদুজ্জামান।