দাদা আমি সাতে পাঁচে থাকি না... পরিস্থিতি যেমনই হোক না কেন কিছুশ্রেণীর মানুষ রয়েছেন যাঁদের কোনও কিছুই প্রভাবিত করতে পারে না। প্রত্যহ ঘুম থেকে ওঠা থেকে ঘুমতে যাওয়া, রোজনামচার ছবিটা এক কথায় ছকে বাঁধা। পৃথিবী রসাতলে গেলেও এঁনাদের পাতে খাবার, হাতে অফিসের ব্যাগ ও বিকেলের পর চায়ের দোকানে চর্চা। এমনই মানুষের স্বভাব ও মানবিকতার অভাব তুলে ধরতেই এবার কলম ধরলেন টলিউড অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষ। 

আরও পড়ুনঃ গঙ্গা বক্ষে সুশান্তের অস্থি বিসর্জন, মুহূর্তে ছড়িয়ে পড়ল অভিনেতার শেষ বিদায়ের ভিডিও

গোটা দুনিয়া রসা তলে গেলেও  লেখকের ভাষায় যাঁরা বারান্দা থেকে নামেন না। গণতান্ত্রিক দেশের প্রতি যাঁদের একটাই কর্তব্য ভোট দেওয়া, করোনায়, ঘূর্ণিঝড়ে রসাতলে যাক গোটা পৃথিবী তবুও দর্শক আসন থেকে নড়তে না চাওয়া এই শ্রেণীর মানুষদের কথাই বলতে কলম ধরলেন রুদ্রনীল। ব্যঙ্গের ছন্দে বেঁধে এক কথায় একের পর এক তোপ হানলেন রুদ্রনীল। আর তাঁর লেখা সেই কবিতাই এখতন নেট দুনিয়ায় ভাইরাল। 

দাদা আমি সাতে পাঁচে থাকি না... কবিতার প্রতিটা ছত্র যতটা মন ছুঁয়ে যায়, ঠিক ততটাই তা সুন্দর করে উপস্থাপনা করে নজর কেরেছে ছোট্ট শিল্পী  বিতান রাউত। সোশ্যাল মিডিয়ায় বিতনের পাঠ করা কবিতাটা শেয়ার করে রুদ্রনীল লেখেন- স্যার থাকেন নৈহাটি,পড়েন ক্লাস ফোরে। তাই বারান্দা থেকে নামেন না। পরবর্তীতে তিনি নিজেও কবিতাটা পাঠ করেন, এবং তা পোস্ট করে জানান, ছোট্ট বিতন তাঁর থেকেও সুন্দর করে বলেছে। চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে বলেন মিলিয়ে দেখতে।