'দাদার কীর্তি', 'ভাগ্যলিপি', 'ভালবাসা ভালবাসা'- এ রকম অসংখ্য ছবিতে একসঙ্গে অভিনয় করেছেন তাঁরা। সহ অভিনেতা থেকে তাই সম্পর্কটা গত দু' তিন দশকে নিবিড় বন্ধুত্বের রূপ নিয়েছিল। রাজনীতিতেও তাঁরা ছিলেন একই দলে। তাপস পালের আকস্মিক মৃত্যু সংবাদে তাই সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত অভিনেত্রী এবং বিধায়ক দেবশ্রী রায়। কান্নায় ভেঙে পড়ে কোনওক্রমে জানালেন, 'আমি বিশ্বাস করতে পারছি না। কী বলব!'

এ দিন সকালেই মুম্বাইয়ের বাদ্রার একটি বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হয় ৬১ বছরে বয়সি অভিনেতার। দীর্ঘদিন ধরে স্নায়ুর রোগে ভুগছিলেন কৃষ্ণনগরের প্রাক্তন সাংসদ। গত ৬ ফেব্রুয়ারি তাঁকে ভেন্টিলেশন থেকে বের করেও আনা হয়েছিল। কিন্তু হাসপাতাল থেকে আর বাড়ি ফেরা হলো না তাপস পালের। এ দিন ভোররাতে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় এই অভিনেতার। 

আরও পড়ুুন- 'তাপসের গ্রেফতারিতে কেন ধরনা দেননি', মমতার বিরুদ্ধে মৃতদেহ রাজনীতির অভিযোগ বিরোধীদের

আরও পড়ুন- 'স্তম্ভিত এবং শোকাহত', শোকবার্তায় তাপসকে তৃণমূল পরিবারের সদস্য বললেন মমতা

তাপস পালের মৃত্য়ুতে স্বভাবতই শোকের ছায়া নেমে এসেছে বাংলা সিনেমা জগতে। কিন্তু অভিনেত্রী দেবশ্রী রায়ের ক্ষেত্রে তাপস পালের মৃত্যু এক পরম বন্ধু বিয়োগের সমান। সেই কারণেই কথা বলার মতো অবস্থাতেও নেই তিনি। কোনওক্রমে বললেন, 'আমি কথা বলার মতো অবস্থায় নেই। আমি তো বিশ্বাসই করতে পারছি না। একের পর এক ছবি করেছি আমরা...।'

তাঁদের অভিনীত 'দাদার কীর্তি'-র মতো চিরকালীন ছবি যে কোনও প্রজন্মের দর্শকদেরই মন জয় করতে বাধ্য। সেই সব সুখস্মৃতি আজ ফিরে ফিরে আসবে দেবশ্রী রায়ের মতো তাপস পালের সমসাময়িক এবং সহ অভিনেতাদের মনের মধ্যে। তাপস পাল থাকলেন না, কিন্তু তাঁর কাজ চিরকালের জন্য দর্শকদের মনের মণিকোঠায় থেকেই যাবে।