শুরু করেছিলেন ছোট্ট এক পরিবার নিয়ে। ধীরে ধীরে মনামীর এই পরিবার বড় হতে থাকে। মনামীর ইউটিউব পরিবার ক্রমশ সুপ্রসারিত হয়েই চলেছে। দুই লাখ ফলোয়াড় সংখ্যা বেড়ে গিয়েছে মনামীর। দ্রুতগতিতে বেড়ে চলেছে সেই সংখ্যা। আনন্দে আত্মহারা হয়ে বিশেষ ভিডিও বার্তা শেয়ার করলেন অভিনেত্রী। ধন্যবাদ জানালেন সকলকে। ফলোয়াড়দের ছাড়া এ যাত্রাপথ তাঁর কাছে অত্যন্ত কঠিন। তাই তাদের ছাড়া মনামী সম্পূর্ণ, সে কথাও জানালেন অভিনেত্রী। প্রসঙ্গত, সম্প্রতি শেষ হয়ে গিয়েছে 'ইরাবতীর চুপকথা'র শ্যুটিং। ধারাবাহিকটি শেষে হওয়ার জন্য হতাশ হয়েছে ভক্তরা। তবে মনামীকে নিত্যদিন দেখার জন্য তাঁর ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে।

আরও পড়ুনঃদেবলীনা থেকে 'ডিভা', মনোক্রমে উষ্ণতার পারদ চড়ালেন নায়িকা

সম্প্রতি নিজের ইনস্টাগ্রামে আরুশি রূপে সেজে পোস্ট করে জানিয়েছিলেন, "আরুশির আজকে শেষ দিন ছিল। সকলকে অসংখ্য ধন্যবাদ ভালবাসা এবং পাশে থাকার জন্য।" শেষ হল 'ইরাবতীর চুপকথা'। ইতিমধ্যেই প্রশ্নে জর্জরিত মনামী। নতুন কোনও ধারাবাহিকে তাঁকে দেখা যাবে কিনা সেই নিয়ে প্রশ্ন করে চলেছে সাইবারবাসী। প্রসঙ্গত, লকডাউন থাকুক বা উঠুক। মনামী ঘোষের বিনোদনের চ্যানেল সর্বক্ষণ অন। নাচ, গান, আবৃত্তি, নানা জিনিসে নিজের ভক্তদের মনোরঞ্জনের জোগান দিয়েছেন। মাস খানেক আগে তাঁর একটি নাচের ভিডিও বেশ ভাইরাল হয়। দীপিকা পাডুকোনের ছবি পদ্মাবত-এর গান নেনোওয়ালে নে-তে কোমর দুলিয়েছেন নায়িকা। ভিডিওতে পরণে লাল রঙের ঘাঘড়া। 

আরও পড়ুনঃ'কঙ্গনাকে গ্রেফতার করা হোক', টুইটার ট্রেন্ডে নাজেহাল ক্যুইন

নথ ছাড়া নেই কোনও গয়না। ভিডিওতে রূপ যেন ঠিকরে পড়ছে মানমীর। অন্যদিকে নাচের ভিডিওটির অভিনবত্ব ছিল, গ্রামের মধ্যে শ্যুট করা। আশপাশে কেবল বন জঙ্গল আর পুকুর। সেখানেই নিজের নাচের প্রতিভায় মেতে ওঠেন মনামী। সেই ভিডিও নিজের ইউটিউব চ্যানেলে পোস্ট করেছেন মনামী। তাতে ভক্তদের মন্তব্য, "আপনাকে যত দেখি তত অবাক হই। গ্রামের রাস্তায় আপনার নাচ থেকে মুগ্ধ।" করোনার প্রকোপে চলছে লকডাউন। যার মাঝেই চলছে শ্যুটিং শুরু হয়েছে টেলিপাড়ায়। শ্যুটিং পাড়ায় ঢোকার আগে সমস্ত নিয়ম মেনেও কাজ চলছে। তবুও কোথাও যেন ভয় কাটছে না অভিনেত্রী। শ্যুটিংয়ে যেতেই হবে কোনও উপায় নেই। এই শ্যুটিংয়ের মাঝেই চলছে মনামীর বিনোদনের ভিন্ন জগৎ।