ভারতীয় চলচ্চিত্র জগতে  নক্ষত্রপতন।  সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের  মৃত্যুশোক এখনও কাটিয়ে উঠতে পারছে না বাংলা তথা গোটা শহরবাসী। একটানা দীর্ঘ ৪০ দিনের লড়াই শেষ অপুর। ফেলুদা আর নেই।  বাঙালির রোম্যান্টিক হিরো সৌমিত্রর স্মৃতির স্মরণী বেয়ে দু-বছর আগে ফিরলেন শুভশ্রী।

আরও পড়ুন-৯-এ পা আরাধ্যার, 'সেক্সি মাম্মা' ঐশ্বর্যকে জড়িয়ে ছবিতে Click বার্থ-ডে গার্লের...

আরও পড়ুন-'আমার জীবন কি তুমি ধ্বংস করবে', বিচ্ছেদের জল্পনার মধ্যেই শ্রাবন্তীকে খোঁচা তৃতীয় স্বামী রোশনের...

মহানায়ক উত্তম কুমারের সঙ্গে তার তুলনা টানলেও সমালোচকরা তাকে এগিয়ে রাখে কিন্তু সৌমিত্রর ভক্ত সংখ্যা উর্ধ্বে। জীবনে কী পাব না গানে সৌমিত্র ও তনুজার নাচ আজও  সকলের  হৃদয়ে গেঁথে রয়েছে। চিরকালের অন্যতম পার্টি অ্যান্থম নিয়ে বছর ২ আগে সৌমিত্রকে প্রশ্ন করেছিলেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়, এই গান যদি পুনরায় শুট করা হয়, তাহলে এই প্রজন্মের নায়িকাদের মধ্যে কাকে বেছে নেবেন তিনি। সৌমিত্রও সটান জবাবে জানিয়েছিলেন, শুভশ্রী গাঙ্গুলি। দেখে নিন থ্রো-ব্যাক ভিডিওটি,

 

 

সালটা ২০১৮। কালার্স বাংলার গেম শো 'কে হবে বাংলার কোটিপতি'-তে এই কথা বলেছিলেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় । প্রশ্নের উত্তরে সৌমিত্রর জবাব শুনে প্রসেনজিৎ সকলের সামনে প্রকাশ্যেই জানিয়েছিলেন,শুভশ্রী এই কথা শুনলে অজ্ঞান হয়ে যাবে। শুভশ্রীও সেই ভিডিও শেয়ার করে নিজের অভিব্যক্তি প্রকাশ করেছিলেন। এ তো জেগে থেকেই স্বপ্ন দেখছি। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের থেকে এই কথা শুনে আমি নিজেকে ধন্য মনে করছি। এই সমস্ত পুরোনো স্মৃতি বারেবারে ফিরে আসছে রাজ ঘরণীর মনে। গতকাল এই ভিডিও শেয়ার করে শুভশ্রী লিখেছেন,   'জীবনের অন্যতম সেরা মুহূর্ত '। মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়েছে এই ভিডিও। 

 


 টানা ৪০ দিন ধরে চলছিল জীবন-মৃত্যুর লড়াই। অদম্য ফাইটিং স্পিরিট নিয়ে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছিলেন বাঙালির ফেলুদা। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পরিস্থিতি এগোচ্ছিল খারাপের দিকে। চিকিৎসকেরা জানিয়েছিলেন, তাদের সব রকম চেষ্টা সত্বেও কোনও কিছুই কাজ হচ্ছে না। কিন্তু  লড়াকু মানুষটির থেকে আরও একবার কামব্যাকের আশা করেছিলেন সকলে। কিন্তু শেষরক্ষা আর হল না। তবে বাঙালির আইকন সৌমিত্র,  সকলের প্রিয় অপু, ফেলু মিত্তির আজীবন রয়ে সকলের মননে।