এবছর এক অন্য পুজো। এক কথায় বলতে গেলে এবছরের পুজোর প্ল্যানিং-এর তালিকাতে থাকা সব পরিকল্পনাই সাধারণের জন্য বাতিল। তবে কেনও তা সেলেব মহলের জন্য প্রযোজ্য নয়! অষ্টমীর সকালের পর থেকেই শুরু হয়েছে এই মর্মে জল্পনা। সুরুচি সংঘে দুই সেলেব জুটির উপস্থিতিতেই যত সমস্যা। স্থানীয়দের মতে, নো এন্ট্রি জোনে প্রবেশ করে পুষ্পাঞ্জলি কেবল সেলেব বলেই! বিষয়টা ঠিক কেমন! 

 

এক জুটির দ্বিতীয় বছরের পুজো, আর একের প্রথম, বিয়ের পর জুটিতে মিলে এভাবেই পুজোর আমেজে গা ভাসিয়েছিলেন নিখিল, নুসরত। প্রথম বছরেই ছবিটা এসেছিল সামনে। ঢাক বাজিয়ে সিঁদুর খেলে সকলের নজর কেড়েছিলেন তাঁরা। এবারও অষ্টমীর পুষ্পাঞ্জলি দিতে সুরুচিতে হাজির হন নুসরত ও লিখিল, তাই নিয়ে ওঠে প্রশ্ন, এই জোনে প্রবেশের যে নির্দিষ্ট নাম রয়েছে, বা সংখ্যা রয়েছে তা কি পালন করেই তাঁদের আনা হয়েছে! 

 

একই ভাবে অভিযোগের আঙুল ওঠে সৃজিত মুখোপাধ্যায় ও মিথিলাকে ঘিরে। বিয়ের পর এটা তাঁদের প্রথম বছর। তাই নিজেদের প্রথম পুজোর পুষ্পাঞ্জলি একসঙ্গে দিতেই সুরুচিতে হাজির হন তাঁরা। নাচে গানে মেতে সেলিব্রেশনের ছবিও ধরা পড়ল ফ্রেমে। কিন্তু হাইকোর্টের রায়! তবে কি এবার আইনি পদক্ষেপের মুখে পড়তে চলেছেন এই দুই জুটি! যদিও সূত্রের খবর অনুযায়ী তাঁরা এই ক্লাবেরই সদস্য, তাই তাঁদের থাকাটা আইনের অমান্য করা নয়।