জল বিশুদ্ধকারক এক মেশিন কোম্পানির সঙ্গে বহুবছর ধরে যুক্ত হেমা মালিনী। সম্প্রতি সেই কোম্পানির একটি বিজ্ঞাপনে শ্রেণিবৈষম্য নিয়ে কুরুচিকর মনোভাব প্রকাশ পেয়েছে। যার পরই নেটিজেন বিজ্ঞাপনটির তীব্র নিন্দা করেছে। পাশাপাশি কোম্পানির ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর হলেন বিজেপি সাংসদ হেমা মালিনী। তাঁকেও এ বিষয় কম ভালমন্দ শুনতে হয়নি। ট্যুইটারে তিনি কোম্পানির হয়ে ক্ষমা চেয়েছেন। এমনকি কোম্পানির প্রতি নিজের হতাশা প্রকাশ করেছেন অভিনেত্রী।

আরও পড়ুনঃঅ্যামাজন প্রাইমের প্রথম ডিজিটাল প্রিমিয়ার, জ্যোতিকার হাত ধরেই বিনোদনে ভিন্নতা পেল তামিল চলচ্চিত্র জগ. 

বিজ্ঞাপনটি ছিল এই কোম্পানিরই আটা এবং পাউরুটি মেকারের। যেখানে ছবির উপরেই লেখা, "আপনি কি পরিচারিকাকে দিয়ে আটা মাখান। তার হাতে থাকতে পারে ভাইরাসের জীবাণু।" বক্তব্য এই যে, পরিচারিকাদের হাতে আটা মাখালে বাড়তে পারে ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা। তাই হাত দিয়ে আটা মাখার সমস্যা ছেড়ে আটা মেকারেই মেখে ফেলুন। এরপরই নেটিজেনদের নিন্দায় ভরতে থাকে সোশ্যাল মিডিয়া। সেই কোম্পানি সহ হেমা মালিনীর কাছে সকলের একই প্রশ্ন, "নিচু শ্রেণির মানুষ বলেই কি তাদের শরীর ভাইরাসের বাহক। আর যারা উঁচু শ্রেণির, তাদের ভাইরাস ছুঁতে পারে না।"

 

 

স্বাভাবিকভাবেই এ প্রশ্নের উত্তর দিতে সেই কোম্পানি এবং হেমা উভয়ই ব্যর্থ। নেটদুনিয়ার রোষে পড়ে বিজ্ঞাপনটি তুলে নিতে বাধ্য সেই কোম্পানি। সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষমাপ্রার্থী হয়ে পোস্টে লেখা হয়, "আমাদের ত্রুটি মার্জনা করবেন। আটা এবং পাউরুটি মেকারের বিজ্ঞাপনটি কোনও শ্রেণির মানুষকে ছোট করার জন্য জারি করা হয়নি। আমরা সকল শ্রেণির মানুষকেই সম্মান করি।"

আরও পড়ুনঃ'ধর্ষণ নিয়ে ছেলেখেলা সহ্য করব না', মধুমন্তী বাগচির গান শুনে কুরুচিকর মন্তব্য এক ব্যক্তির

হেমা মালিনীও ট্যুইট করে ক্ষমা চান, সঙ্গে সেই কোম্পানির প্রতি ক্ষোভ উগরে দেন। বিজেপি সাংসদ ট্যুইটে লেখেন, "কোম্পানির বিজ্ঞাপনটির সঙ্গে আমার ব্যক্তিগত মতামতের কোনও সম্পর্ক নেই। আমি সম্পূর্ণ বিষয়টির বিরুদ্ধে। সমাজের সমস্ত শ্রেণির মানুষকে শ্রদ্ধা করি।"