লকডাউনে প্রায় ২ মাসের বেশি সময় ধরে বন্ধ রয়েছে ইন্ডাস্ট্রি। অনেক কষ্টের মধ্যেই দিনাতিপাত করছেন তারা। দৈনিক মজুরির বিনিময়ে যারা কাজ করছেন তারা অবস্থা আরও গুরুতর। তাদের মধ্যে রয়েছে ব্যাকগ্রাউন্ড ডান্সাররা। সিনেমার নাচের দৃশ্যেই তাদের ডাক পড়ে। অনেকেই এই লকডাউনে আটকে পড়ছেন।নিজেদের বাড়িও ফিরতে পারেননি। কিন্তু কোনও উপায়ই নেই।  নিত্যদিনের অভাব-অনটনই তাদের কুড়ে কুড়ে খাচ্ছে। না খেতে পেয়েই কোনওরকমে দিন চালাচ্ছেন তারা। এহেন দুঃসময়ে বলিউডের ব্র্যাকগ্রাউন্ড ডান্সারদের পাশে দাঁড়ালেন অভিনেতা সিদ্ধার্থ মলহোত্রা।

আরও পড়ুন-বয়সে ছোট সঞ্জয়ের সঙ্গে বিবাহ গুঞ্জন আজও পিছু ছাড়েনি রেখার, জানুন আসল সত্য...

করোনা আতঙ্ক এখন ছড়িয়ে পড়েছে সর্বত্র। মুহূর্তের মধ্যে একজনের থেকে আরেকজনের শরীরে ছড়িয়ে পড়ছে এই ভাইরাস। ইতিমধ্যেই করোনা আতঙ্কে জেরবার বিশ্ববাসী । ইতিমধ্যেই করোনা রুখতে দেশে  লকডাউন শুরু হয়েছে। স্কুল-কলেজ থেকে অফিস-শুটিং-সিনেমাহল সব বন্ধ। আর যার ফলেই বড়সড়া আর্থিক সমস্যার মুখে পড়েছে বিনোদন জগতের সমস্ত কলা-কুশলীরা। আর তাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন বলি তারকারা। এহেন পরিস্থিতি সামাল দিতে  গিয়ে অনেকেই হিমশিম খাচ্ছেন। সম্প্রতি সেই তালিকায় রয়েছেন ব্যাকগ্রাউন্ড ডান্সাররা। বলিউডের খ্যাতনামা ডান্সার রাজ সুরানি, যিনি ম্যানেজার হিসেবেই কাজ করেন। তিনি কয়েকদিন আগেই তার গোটা নাচের টিম নিয়ে একটি ভিডিও পোস্ট করেছিলেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেই খবর প্রকাশ্যে আসতেই আর্থিক সঙ্কটে তাদের পাশে দাঁড়ালেন সিদ্ধার্থ মলহোত্রা।

আরও পড়ুন-বিবেককে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছিলেন সলমন, জানার পর কী প্রতিক্রিয়া হয়েছিল ঐশ্বর্যর...

সিদ্ধার্থ মলহোত্রা ২০০ জন নৃত্যশিল্পীর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে টাকা পাঠিয়ে দিয়েছেন।  বলিউডের খ্যাতনামা কোরিওগ্রাফার রেমো ডিসুজা, বস্কো মারটিস ও ডান্সারদের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। তবে এই প্রথম কোনও অভিনেতা তাদের পাশে দাঁড়ালেন। রাজ জানিয়েছন অয়ন মুখোপাধ্যায়ের আগামী ছবি 'ব্রহ্মাস্ত্র' ছবিতে তার টিমের নাচের কথা ছিল। কিন্তু লকডাউনে তা আটকে গেছে। 


কিছুদিন আগে অভিনেত্রী সায়ন্তনীও নিজের সমস্যার কথা তুলে ধরেছিলেন। তবে শুধুমাত্র নিজের সমস্যার কথাই নয়, দৈনিক পারিশ্রমিকের ভিত্তিতে যারা কাজ করেন তাদের নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন অভিনেত্রী। প্রতিটা মানুষেরই এই সময়টা ভীষণ অসুবিধা হচ্ছে। তবে লকডাউন উঠে গেলেই বা কতটা নিরাপদে শুটিং হবে তা নিয়েও চিন্তিত অভিনেত্রী অভিনেত্রী। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কতটা সচেতন থাকা যাবে তা নিয়ে উদ্বিগ্ন তিনি। কারণ মানুষের সংস্পর্শেই সংক্রমিত হচ্ছে এই করোনা ভাইরাস । মানুষের নিঃশ্বাস প্রশ্বাসের সঙ্গেই ছড়িয়ে যাচ্ছে এই রোগের জীবানু। যত দিন যাচ্ছে ততই যেন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে ভাইরাসে আক্রান্ত এবং মৃতের সংখ্যা। সারা দেশে  মহামারির আকার ধারণ করেছে এই করোনা ভাইরাস।