সদ্যই অনুষ্ঠিত হয়ে গেল গান্ধীজির ১৫০ তম জন্মবার্ষিকী। তার মূল উদ্দেশ্য ছিল মহাত্মা গান্ধীর আদর্শকে সিনেমা ও টেলিভিশনের মধ্য দিয়ে সবার মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়া। গান্ধীজির জন্মদিন উপলক্ষ্যে গোটা বছর ধরেই নানান পরিকল্পনা রয়েছে মোদী সরকারের। উক্ত অনুষ্ঠানের  দিন প্রধানমন্ত্রীর নিজ বাসভবনে বলিউডের নামী-দামি অভিনেতা, পরিচালক, প্রযোজক সহ বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বরা। বলিউড ছাড়া  অন্য ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির কাউকেই সেভাবে চোখে পড়েনি। আর এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে জল্পনা শুরু হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

আরও পড়ুন -আবেগ ছাড়া 'যৌনতা' অসম্ভব, অকপট স্বীকারোক্তি ইলিয়ানার...

 

 

সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গেছে দক্ষিণী তারকাদের একাংশকে। দক্ষিণী অভিনেতা রামচরণ তেজার স্ত্রী উপাসনা এই নিয়ে প্রথম প্রশ্ন তুলেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়।  তিনি জানিয়েছন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর প্রতি সম্মান ও বিশ্বাস রেখেই বলছি, মোদিজী যে অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলেন, তা শুধু বলিস্টারদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল। দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রি হোক বা অন্য ইন্ডাস্ট্রির তারকা, কাউকেই এই অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। আমি মনে করি তাদের প্রত্যেককেই অবহেলা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন - খুদে তারকার জন্মদিনে বিশেষ পার্টি, নিমন্ত্রণ রক্ষায় তৈমুর-ইনায়া...

যা নিয়ে রীতিমতো উত্তাল সোশ্যাল মিডিয়া। একই বিষয় নিয়ে  ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন রাজনীতিবিদ তথা বিখ্যাত অভিনেত্রী খুশবু সুন্দর। তিনি জানিয়েছেন, এই দেশের অর্থনীতিতে হিন্দির থেকে দক্ষিণী ছবির অবদান অনেক বেশি। সেরা অভিনেতা থেকে টেকনিশিয়ান সবই রয়েছে এই দক্ষিণে। মূলত যাদের ছবি রিমেক করে তৈরী করা হয় হিন্দি চলচ্চিত্র তারাই ব্রাত্য  সবের থেকে। কেন এই বৈষম্য? আর কেনই বা বারবার সবকিছু থেকে ব্রাত্য দক্ষিণী ছবি? এই ঘটনাকে কেন্দ্র করেই জোর জল্পনা শুরু হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।