তপন মল্লিক, প্রতিবেদক--- করোনাকালে অর্থমন্ত্রীর পক্ষে বাজেট পেশ যে একটি বড়সড় চ্যালেঞ্জ তা বলাই বাহুল্য। বিশেষ করে যেখানে গোটা বিশ্বের অর্থনীতি বিধ্বস্ত এবং তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে দেশের অর্থনীতি। এই পরিস্থিতিতে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামনের বাজেট ভেঙে পড়া অর্থনীতির ক্ষততে কতটা প্রলেপ দিতে পারে তা নিয়ে দেশের সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে লগ্নিকারীদের মধ্যে একটা আগ্রহ ছিলই। বাজেটে গোটা দেশের নজর যেমন থাকে বাড়তি নজর থাকে শেয়ার বাজারের দিকে। 


প্রসঙ্গত, সোমবার বাজেটের আগের সপ্তাহেও শেয়ার সূচক নেমে গিয়েছিল। শুক্রবার অর্থাৎ সপ্তাহের শেষদিন শেয়ার বাজারের হিসাব অনুযায়ী সেনসেক্স নেমে গিয়েছিল ৫৮৮ পয়েন্টে। নিফটি নেমেছিল ১৮৩ পয়েন্টে। বাজেট পেশের ঠিক আগের দিন শেয়ার বাজারের এই চিত্রটা মোতেই স্বস্তির ছিল না, বরং চিন্তায় রেখেছিল। কিন্তু দেখা গেল পড়তে থাকা শেয়ার বাজারের হাল উলটে দিয়ে বাজার চাঙ্গা করে দিল নির্মলা সীতারামনের বাজেট। 

বাজেটের দিনে সূচকের ওঠানামা
তারিখ সূচক 
১ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ৫.০০%
১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০  -২.৪৩%
৫ জুলাই, ২০১৯ -০.৯৯%
১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০.৫৯%


উল্লেখ্য, কেন্দ্র কিছু দিন আগে সংসদে ২০২০ সালের অর্থনৈতিক পরিস্থিতির যে রিপোর্ট দিয়েছিল সেখানে পরবর্তী অর্থবর্ষে ১৫.৪ শতাংশ জিডিপি বৃদ্ধির সম্ভাবনার কথা জানিয়েছিল। একথা বলার উদ্দেশ্য বাজেটের আগে থেকেই যাতে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগকারীরা উৎসাহী হয়ে ওঠেন। কিন্তু বাজার অস্থিরতে কাটিয়ে সেভাবে চাঙ্গা হয় নি। এমনকি ভ্যাকসিন আসার পরেও শেয়ার বাজারে ধস নামা অব্যাহত ছিল। তখন শেয়ার বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছিলেন, এই পরিস্থিতি ফেরাতে পারবে নির্মলার ‘পেপারলেস’ বাজেট।  

বাজেটের দিনে সূচকের ওঠানামা
তারিখ সূচক
১ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ৫.০০%
১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ -০.১৬% 
১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১.৭৬% 
২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ -০.৬৬%
২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৫ ০.৪৮% 


বাজেটের আগের সপ্তাহে শেয়ার বাজারের হিসাব অনুযায়ী নতুন বছরের ২১ জানুয়ারি থেকে শেয়ারের সূচক মুখ ছিল নীচের দিকে। দিন কয়েকের মধ্যে মুম্বাই স্টক এক্সচেঞ্জের সূচক হ্রাস পেয়েছে মোট ৩,৫০৬.৩৫ পয়েন্ট। গত সপ্তাহের শেষ দিন বাজার বন্ধ হওয়ার সময় বিএসই সূচক হ্রাস পেয়েছে ১.২৬ শতাংশ। তার জেরে বিএসই-র আওতাভূক্ত কোম্পানিগুলির বাজার মূল্যও উল্লেখযোগ্যভাবে নেমে যায়। ওইসব কোম্পানিগুলির বাজার মূল্য ১,৮৬,১২,৬৪৪.০৩ কোটি টাকা থেকে কমে দাড়ায় ১১,৫৭,৯২৮.৫৪ কোটি টাকাতে। এই অবস্থায় বাজেট ঘিরে দালাল স্ট্রিট-এর পরিস্থিতি ছিল দোদুল্যমান।   

বাজেটের দিনে সূচকের ওঠানামা
তারিখ সূচক 
১ ফেব্রুয়ারি, ২০২১  ৫.০০% 
১০ জুলাই, ২০১৪ -০.২৮%
১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৪ ০.৪৮% 
২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৩ -১.৫২%
১৬ মার্চ,২০১২ -১.১৯%
২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১১ ০.৬৯%


শেয়ার বাজারের এই হাল পর্যালোচনা করে বিশেষজ্ঞরা বাজেটের আগে একটু সাবধান হওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন। কারণ বিশ্ব অর্থনীতির স্বাস্থ্য ফেরাতে গিয়ে তারা বিশ্বজুড়ে পুঁজি বাজারের উদ্বেগজনক পরিস্থিতির কথা উল্লেখ করেন। তারা এও বলেন যে ভারতেও তার যথেষ্ট প্রভাব রয়েছে। তাই এক সময়ে ৫০ হাজারের রেকর্ড গড়া দালাল স্ট্রিটও বিনিয়োগের আগে একটু সাবধানে পা ফেলতে শুরু করেছিল। সেক্ষেত্রে তারা শেয়ার সূচক যে নিম্নমুখী সেকথাও খেয়াল রাখে। এরপর লগ্নিকারীদের একাংশ বুঝতে শুরু করেন যে, আগামী সপ্তাহেও বাজারের অবস্থাটা একই রকম থাকবে বলেই ধরে নেন। কিন্তু তাঁদের পাখির চোখ ছিল বাজেটের ঘোষণা ও সিদ্ধান্তগুলির দিকে। কারণ চলতি বছরের বাজেটে অর্থমন্ত্রী করের ক্ষেত্রে কী কী ঘোষণা করেন, নতুন কোনও কর বসান না ছাড় দেন তার দিকে। মূলত নতুন কর বা করে ছাড় শেয়ার বাজারে প্রভাব ফেলে। তাছাড়া করোনা পরিস্থিতিতে সরকারি কোষাগারের যে পরিস্থিতি তাতে অনেক কিছুই ঘটতে পারে। সেসব কথা ভাবেই শেয়ার বাজার বাজেটের অপেক্ষায় ছিল।

বাজেটের দিনে সূচকের ওঠানামা
তারিখ সূচক 
১ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ৫.০০% 
২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১০ ১.০৮% 
৬ জুলাই, ২০০৯ -৫.৮৩% 
১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০০৯ -৩.৪২% 
২৯ ফেব্রুয়ারি,২০০৮ -১.৩৮%
২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০০৭ -৪.০১%
২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০০৬ ০.৮৬%
২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০০৫ ২.১৯%


কিন্তু বাজেট পেশের পরেই দেখা গেল শেয়ার বাজার চাঙ্গা। সেনেসেক্স ১০০০ পয়েন্ট থেকে বেড়ে ১,৫০০। ঘন্টা দুইয়ের মধ্যে সেনসেক্স ৪৮ হাজারের সর্বোচ্চ মাত্রায় পৌঁছেছে।শেয়্র বিশেষঙ্গদের মতে, বিমায় বিদেশি বিনিয়োগ ৪৯ শতাংশ থেকে ৭৪ শতাংশ করার প্রস্তাবেই দালাল স্ট্রিটের চেহাড়া বদলে গিয়েছে। জ়িরো বন্ড কুপন আর বিমাতে এফডিআই-এর উর্ধ্বসীমা বাড়ানোর ঘোষণাই পালটে গিয়েছে বাজারের ছবি। তরতরিয়ে ওঠে দুই সূচক। 

বাজেটের দিনে সূচকের ওঠানামা
তারিখ সূচক 
১ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ৫.০০% 
৮ জুলাই, ২০০৪ -২.২৬%
৮ জানুয়ারি, ২০০৪ ২.৫৪%
২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০০৩ ০.১৯% 
২৮ ফেব্রুয়ারি,২০০২ -৩.৮৭%
২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০০১ ৪.৩৬%
২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০০০ -৫.১২%
২৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৯ ৫.১৩%
২৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৮ ১.৪২%
২৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৭ ৬.৫৪%


হিসাব বলছে গত ১১ বছরে বাজেটের ইতিহাসে প্রথম শেয়ার বাজারের দর এই উচ্চতায় পৌঁছেছে। সেনসেক্স বেড়েছে ২০৯৯ পয়েন্ট, নিফটি ৫৮২ পয়েন্ট। সোমবার বেলা আড়াইটের হিসাব সেনসেক্স ২১২৯ পয়েন্ট লাফিয়ে ৪৮৪১৫ আর নিফটি ৬০৬ লাফিয়ে ১৪২৪০।

'লাগবে না রাস্তা-ওই টাকা কৃষকদের দিক', 'আমি সব বানিয়ে দেব'- বাজেট শুনেই প্রতিশ্রুতি মমতার ...

করোনা ঝড়ের সঙ্গে লড়াইয়ে এসেছে সাফল্য, এবার জোর পরিবর্তন আর আর্থিন উন্নয়নে .
ইতিহাস বলছে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী হিসেবে প্রনব মুখোপাধ্যায় থেকে নির্মলা সীতারামণ পর্যন্ত গত দশ বছরে বাজেটের দিনে শেয়ার বাজার কখনও এই উচ্চতায় পৌঁছায় নি। গত এক দশকে  বাজেটের দিন মাত্র তিনবার সেন্সেক্স বেড়েছিল কিন্তু সাতবার মুখ থুবড়ে পড়েছিল। ২০১৯-এর ৫ জুলাই সেনসেক্স পড়েছিল ৩৯৫ পয়েন্ট, ২০২০-র ১ ফেব্রুয়ারিতে সেনসেক্স নেমেছিল ৯০০ পয়েন্ট। ২০১০ থেকে ২০১২ সাল প্রণব মুখোপাধ্যায়ের বাজেটে দু’বারই সেনসেক্স নেমেছিল। পি চিদাম্বরম ২০১৩-র ২৮ ফেব্রুয়ারী যে বাজেট পেশ করেছিলেন সেদিনও সেনসেক্স ২৯১ পয়েন্ট নেমেছিল। ২০১৪ থেকে ২০১৮ অরুণ জেটলি মোট ৫ বার বাজেট পেশ করেছিলেন তাতেও দু’বার শেয়ার বাজারে ধস নেমেছিল।