স্ত্রীকে সন্দেহ করত স্বামী। আর তারই জেরে স্ত্রীর পেটে ছুরি মেরে নিজে আত্মহত্যার চেষ্টা করল অভিযুক্ত। পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে দু'জনকেই হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে স্ত্রী পল্লবী পালের মৃত্যু হয়।। পূর্ব বর্ধমানের কাটোয়ার সিঙ্গী গ্রামের ঘটনায় চমকে গিয়েছে এলাকাবাসী। 

সব হিংসাই নিন্দনীয়, দিল্লির হিংসা নিয়ে মমতাকে খোঁচা রাজ্য়পালের

কেতুগ্রামের নিরোলের বাসিন্দা অশোক পালের সঙ্গে বছর তিনেক আগে কাটোয়ার সিঙ্গী গ্রামের পল্লবীর বিয়ে হয়। অশোক পেশায় অলঙ্কারের দোকানের কর্মী। তাদের দেড় বছরের কন্যা সন্তান রয়েছে। জানা গিয়েছে, অন্য পুরুষের সঙ্গে স্ত্রীর সম্পর্ক রয়েছে এমনটাই সন্দেহ করত অশোক। এই অভিযোগে পরিবারের সাংসারিক অশান্তি লেগেই ছিল। যার  জেরে মাস চারেক মেয়েকে নিয়ে বাপের বাড়িতেই থাকছিল পল্লবী।

বিমানে উঠতেই বিপত্তি, অল্পের জন্য প্রাণে বাঁচলেন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস

 আজ তাকে ফিরিয়ে আনার জন্য শ্বশুরবাড়ি যায় অশোক। সেখান থেকে বাজারে বের হয় তারা। অভিযোগ, নির্জন জায়গায় নিয়ে গিয়ে প্রথমে স্ত্রীর পেটে ছুরি মারে অশোক। সে চিৎকার করলে এলাকার লোক ছুটে আসে। মেয়েকেও মারার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ। যদিও লোকজন জড়ো হয়ে যাওয়ায় তা করতে  পারেনি অভিযুক্ত।  এরপরই নিজের পেটে ছুরি মারে অশোক। আশঙ্কাজনক অবস্থায় দুজনকে নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে। সেখানে স্ত্রী পল্লবীর মৃত্যু হয়।

দেশ ছাড়ার নির্দেশকে 'চ্যালেঞ্জ',হাইকোর্টের দ্বারস্থ যাদবপুরের সিএএ বিরোধী বিদেশি ছাত্র