পত্রলেখা বসু চন্দ্র, বর্ধমান: 'এই পুলিশ অফিসারটিকে চিনে রাখুন....'  পূর্ব বর্ধমানের ভাতার থানার ওসি-এর বিরুদ্ধে ফেসবুকে আপত্তিকর পোস্ট করে বিপাকে মানবাধিকার সংগঠনের নেত্রী সঙ্গীতা চক্রবর্তী। তাঁর বিরুদ্ধে সরকারি কাজে বাধা, হুমকি ও সোশ্যাল মিডিয়া অশ্লীল বার্তা দেওয়ার অভিযোগে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। অভিযুক্তের অবশ্য দাবি, ভাতার থানার ওসি তাঁকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর চেষ্টা করছেন।

আরও পড়ুন: 'টালিগঞ্জের মন্ত্রী আমার কাকু',উঠতি মডেলকে কাজ পাইয়ে দেওয়ার টোপ যুবকের

ঘটনাটি ঠিক কী? পূর্ব বর্ধমানের আউশগ্রাম থানার অন্তর্গত বিল্বগ্রামের বাসিন্দা সঙ্গীতা চক্রবর্তী।  মানবাধিকার সংগঠনে হয়ে কাজ করেন তিনি। বুধবার ভাতার থানার ওসি প্রণব বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের ছবি-সহ ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন সঙ্গীতা। ওসি-কে উদ্দেশ্য করে সেই পোস্টে লেখেন, 'এই অফিসারকে চিনে রাখুন। ইনি মিথ্যাভাবে গাঁজা কেস দেওয়ার মাষ্টার। টিএমসির বিরোধিতা করলে তাকে ধরে এনে লকআপে ভরে পেটান।' পুলিশের দাবি, সঙ্গীতার পোস্টটি চোখের নিমেষে ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। শুধু তাই নয়, মানবাধিকার সংগঠনের ওই নেত্রীর পুরানো পোস্টের আবার অশ্লীল মন্তব্য করেন খোদ ভাতার থানার ওসি-এর স্ত্রী। 

আরও পড়ুন: পঞ্চায়েতের সাধারণ সভা ঘিরে রণক্ষেত্র হেরামপুর, তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষে গুরুতর জখম একাধিক

 

শুক্রবার ওসি-র স্ত্রী যে কমেন্টটি করেছিলেন, সেই কমেন্টের স্ক্রিনশট শেয়ার ফেসবুকে ফের পোস্ট দেন সঙ্গীতা। দাবি করেন, পুলিশ আধিকারিকের স্ত্রী তাঁকে 'হুমকি' দিয়েছেন। আর এই পোস্টটি নজরে আসার পর আর চুপ করে বসেনি থাকেনি পুলিশ। মানবাধিকার সংগঠনে নেত্রীর বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়। ওসি-র বিরুদ্ধে কেন এমন বিতর্কিত পোস্ট দিলেন? সঙ্গীতা চক্রবর্তীর দাবি, ভাতারের এরুয়া গ্রামের এক যুবককে সম্প্রতি মিথ্যা মাদক মামলায় ওসি গ্রেফতার করেছেন। সেই ঘটনার প্রেক্ষিতেই সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট দিয়ে প্রতিবাদ করেছিলেন তিনি।