চাকরি দেওয়ার নামে 'প্রতারণা', লক্ষাধিক টাকা আত্মসাতের অভিযোগ। তৃণমূল কংগ্রেসের নেতাকে গ্রেফতার করল পুলিশ। পুরভোটের আগে বর্ধমানে মুখ পুড়ল তৃণমূল কংগ্রেসের।

আরও পড়ুন: ৯ ছাত্রীকে ভর্তি নেয়নি স্কুল, দিদিকে বলো-তে ফোন করতেই সুরাহা

ধৃতের নাম সীতারাম মুখোপাধ্যায়। বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে যখন চাকরি করতেন, তৃণমূল পরিচালিত কর্মী  ইউনিয়নের নেতা ছিলেন তিনি। এলাকায় শাসকদলের নেতা হিসেবেই পরিচিত অবসরপ্রাপ্ত ওই সরকারি কর্মী। পুলিশ সূত্রে খবর, গত ২২ ডিসেম্বর বর্ধমান আদালতে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন রিঙ্কু দাস নামে এক যুবক।  অভিযোগকারীর বক্তব্য, মৎস্য দপ্তরের চাকরি করে দেওয়ার জন্য কাছে ১২ লক্ষ টাকা চেয়েছিলেন সীতারাম। সাদা কাগজে সই করিয়ে তাঁর কাছ থেকে অগ্রিম পাঁচ লক্ষ নিয়েছিলেন ওই তৃণমূল কংগ্রেস নেতা। চাকরি কি পেয়েছেন? রিঙ্কু দাসের দাবি, টাকা নেওয়ার পর তাঁকে মৎস্য দপ্তরের চাকরি একটি নিয়োগপত্র দেন অভিযুক্ত। কিন্তু সেই নিয়োপত্র নিয়ে যখন চাকরিতে যোগ দিতে যান, তখন জানতে পারেন, নিয়োগপত্রটি ভুয়ো! এরপরই বর্ধমান থানায় অভিযোগ দায়ের করেন 'প্রতারিত' ওই যুবক। বুধবার রাতে অভিযুক্ত তৃণমূল নেতা সীতারাম মুখোপাধ্যায়কে গ্রেফতার করে পুলিশ।

আরও পড়ুন: 'জলরাক্ষসে কেড়েছে প্রাণ', ক্যানিং-এ কুসংস্কারের বলি বালিকা

এদিকে রাজ্যে পুরভোটের দামামা বেজে গিয়েছে। বর্ধমান পুরসভার মেয়াদ শেষ হয়ে দিয়েছে বছর দেড়েক আগেই। আপাতত পুরসভা চালাচ্ছেন প্রশাসন। সেক্ষেত্রে রাজ্যের অন্যন্য় পুরসভার সঙ্গে ভোট হবে বর্ধমানেও। আর ভোটের আগে চাকরির নামে প্রতারণা অভিযোগে গ্রেফতার হলেন তৃণমূল কংগ্রেস নেতা। বেজায় অস্বস্তিতে পড়েছে শাসকদলের স্থানীয় নেতৃত্ব।