একটানা  লকডাউনের জেরে  নাজেহাল প্রত্যেকে। পঞ্চম দফার লকডাউনে আনলক ১ পর্ব শুরু হয়েছে।  সুরক্ষার কথা মাথাই রেখে জনসাধারণের জন্য নতুন নিয়ম নিয়ে এসেছে এলআইসি। দেশের বিশ্বাসযোগ্য বিমা সংস্থা বলতেই সবার আগে মাথায় আসে এলআইসি-র নাম। দীর্ঘদিন ধরে  দেশের সবথেকে বড় ইনস্যুরেন্স সংস্থা ভারতীয় জীবন বিমা নিগম সকলের সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে একাধিক পলিসি নিয়ে এসেছে। প্রতিটি পলিসির মধ্যে রয়েছে হাজার হাজার মানুষ। প্রত্যেকেই নিজেদের প্রয়োজন মতো ভবিষ্যতের সুরক্ষায় এই পলিসি করিয়ে রেখেছেন।  

আরও পড়ুন-আধার কার্ড নিয়ে বড় ঘোষণা, উপকৃত হবেন কোটি কোটি মানুষ...

দীর্ঘদিনের লকডাউনে আটকে ছিল প্রচুর কাজ। ধীরে ধীরে পরিস্থিতি শিথিল হচ্ছে। অনেক কাজের ক্ষেত্রেই সময়সীমা বাড়ানো হচ্ছে। কিন্তু যেই সময়সীমা বাড়ানো হচ্ছে তার মধ্যেই সকলকে পড়ে থাকা কাজ সেরে নিতে হবে। পরে করব এই বলে ফেলে রাখলে চলবে না। লকডাউনের জেরে এলআইসি ম্যাচিউরিটি ক্লেম সেটেলমেন্টের নিয়মে একাধিক বদল আনা হয়েছে। গ্রাহকদের সুবিধার কথা মাথায় রেখেই এই রদবদল এনেছে এলআইসি।

আরও পড়ুন-প্রতিদিন ১ টাকাতেই আনলিমিটেড কলিং, সস্তার প্ল্যান আনল বিএসএনএল...

এলআইসির ম্যাচিউরিটি ক্লেম সেটেলমেন্টের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, যে পলিসি হোল্ডাররা এবার ইমেলের মাধ্যমে ক্লেম ডকুমেন্ট পাঠাতে পারবেন। এলআইসি-র পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে,  ৩০ জুনের পর্যন্ত পলিসিহোল্ডাররা কেওয়াইসি সহ অন্য ডকুমেন্টের স্ক্যান কপি সার্ভিস ব্রাঞ্চে পাঠাতে পারবেন ম্যাচিউরিটি বা সার্ভাইবল ক্লেম পাওয়ার জন্য। অনলাইনে কীভাবে পুরো পদ্ধতিটি করবেন , দেখে নিন। প্রথমে আপনার ডকুমেন্ট ক্লেমডট বিও ব্রাঞ্চ কোড এট দ্য রেড এলআইসি ডট কম-এ পাঠাতে পারবেন। এখানে ব্রাঞ্চ কোডের জায়গায় আপনার সার্ভিস ব্রাঞ্চ কোড দিতে হবে। পুরো কাজটি ৩০ জুনের আগে করতে হবে। একটি মেলে ৫ এমবি ডকুমেন্ট পাঠাতে পারবেন। এর থেকে বেশি হলে আরও বেশি মেল পাঠাতে হবে। স্ক্যান করা কপি জেপিজি বা পিডিএফ ফরম্যাটে পাঠাতে হবে।  এই মেল আইডি আপনি শুধুমাত্র ক্লেম সংক্রান্ত বিষয়ে ব্যবহার করতে পারবেন। অন্য কোনও বিষয়ে মেলআইডি কোনও কাজে আসবে না।