করোনভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর বাড়ি দাওয়াত খেয়ে এখন ফাঁপরে মধ্যপ্রদশেরে মোরেনা জেলার প্রেম নগরের বাসিন্দারা। ইতিমধ্যে সিল করে দেওয়া হয়েছে এলাকার ৩০০০ টি বাড়ি। হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠান হয়েছে ২৬ হাজার মানুষকে।

এলাকার সাব ডিভিশনাল মেজিস্ট্রেট আরএস আকনা জানিয়েছেন, গত ১৭ মার্চ দুবাই থেকে ফেরেন এক ব্যক্তি। গত ২০ মার্চ প্রেম নগরের ৪৭ নম্বর ওয়ার্ডে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলেন ওই দম্পতি। যেখানে হাজির হয়েছিলেন এলাকার অনেক স্থানীয় বাসিন্দাই। গত শুক্রবার ওই দম্পতির করোনা পরীক্ষার ফল পজিটিভ আসে। শুধু তাই নয় দম্পতির সংস্পর্শে আসা আরও ১০ জনের শরীরেও কোভিড ১৯  সংক্রমণের প্রমাণ মেলে। তার পরেই গোটা এলাকার ২৬ হাজার মানুষকে ১৪ দিনের জন্য হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয় প্রশাসন। 

ধারাভি নিয়ে ক্রমেই গাঢ় হচ্ছে চিন্তার ভাজ, মহারাষ্ট্রে করোনা সংক্রমণ ছাড়িয়ে গেল ৫০০ গণ্ডি

করোনা ভাইরাসের টার্গেট এবার তরুণ প্রজন্ম, পরিসংখ্যান দিয়ে সতর্ক করল 'হু'

জুনে পরিস্থিতি হবে সবচেয়ে খারাপ, সমীক্ষা বলছে লকডাউন চলতে পারে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত

আপাশাশি এসডিএম আরও জানান ওই দম্পতির ঘনিষ্ঠ ২২ জনকে ইতিমধ্যে করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য পাঠান হয়েছে। এদিকে মধ্যপ্রদেশে এখনও পর্যন্ত ১৬৫ জনের শরীরে মারণ ভাইরাস পাওয়া গিয়েছে। মহামারীতে এখনও পর্যন্ত রাজ্যে ১০ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে।  এদের মধ্যে ৭ জনই ইন্দোরের বাসিন্দা। 

রাজ্যে এখনও পর্যন্ত ইন্দোরেই সংক্রমণের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। শনিবার দুপুর পর্যন্ত সংখ্যাটা ছিল ১১৫। এদিন কোরান ভাইরাসের কারণে ইন্দোরে এক ৮০ বছরের বৃদ্ধার পাশাপাশি মৃত্যু হয়েছে ৪২ বছরের এক ব্যক্তিরও। ছিন্দওয়াড়া করোনার বলি হয়েছে ৩৬ বছরের এক যুবক।