এদেশে সাড়ে পাঁচশোরও গণ্ডি পেরিয়ে গেল করোনাভাইরাস সংক্রমণ। এখনও পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ৫৬২। নতুন করে সংক্রমণের খবর পাওয়া গেছে জম্মু ও কাশ্মীর, তেলেঙ্গনা, পঞ্জাব, মহারাষ্ট্র, কর্ণাটক, গুজরাট, রাজস্থান, উত্তরপ্রদেশ ও মণিপুরে। এদিকে বুধবার তামিলনাড়ুতে করোনা সংক্রমণে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটল। মাদুরাইতে প্রাণ হারালেন ৫৪ বছরের এক ব্যক্তি। যার ফলে দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০।

এদেশে করোনা আক্রান্তদের মধ্যে এখনও পর্যন্ত ৪০ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন বলে স্বাস্থ্যমন্ত্রক সূত্রে জানা যাচ্ছে। ইতিমাধ্যে তাঁদের হাসপাতাল থেকে ছেড়েও দেওয়া হয়েছে। এদিকে করোনা সংক্রমণে এখনও পর্যন্ত এদেশে সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছে মহারাষ্ট্র। এখনও পর্যন্ত রাজ্যে ১১৬টি করোনা সংক্রমণের খবর পাওয়া গিয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে একই পরিবারের ৫ সদস্যও রয়েছে। স্বাভাবিক ভাবেই ভয়ের পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে গোটা মহারাষ্ট্র জুড়ে। 

পাকিস্তানে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ, আক্রান্তের সঙ্গে সেলফি তোলায় ব্যস্ত সরকারি আধিকারিকরা

এবার ভারতে সহজলভ্য করোনা পরীক্ষা, একেবারে দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি হয়ে গেল টেস্ট কিট

লকডাউনে বা়ড়িতে বসে বোর হচ্ছেন তরুণী বৌদি, নেচেই ভাইরাল করলেন নিজেকে

করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে ২১দিনের জন্য লকডাউন ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তার আগে থেকেই অবশ্য মহারাষ্ট্র সরকার লকডাউনের পথে হেঁটেছিল। তবে দেশজুড়ে লকডাউনের পরিস্থিতি তৈরি হলেও প্যানিক করার কোন কারণ নেই বলেই আশ্বাস দিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। রাজ্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর যোগান অব্যাহত থাকবে বলেই জানাচ্ছেন তিনি।

একদিকে রাজ্যবাসীকে প্রয়োজন ছাড়া যেমন একেবারেই বাইরে না বের হওয়ার কথা মনে করিয়ে দিয়েছেন তেমনি করোনা যুদ্ধে আরও একটি বিষয়ে জোড় দিয়েছেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী। আগামী দিন গুলিতে মানুষ যাতে  বাতানুকূল মেশিন বা এয়ার কন্ডিশনারের ব্যবহার থেকে বিরত থাকেন সেই কথাই বলছেন উদ্ধব।

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, "যে নির্দেশিকা আমরা পেয়েছি, তাতে কেন্দ্র এয়ার কন্ডিশনার না ব্যবহারের পরামর্শই দিচ্ছে। অপ্রয়োজনীয় শীতলতা ও আর্দ্রতা এই সময় এড়িয়ে চলাই ভাল।" বরং বাড়িতে খোলা বাতাস আসতে দিন, পরামর্শ উদ্ধবের। বর্তমান পরিস্থিতিতে এদিন যুদ্ধের সঙ্গেই তুলনা করেন উদ্ধব ঠাকরে।