করোনাভাইরাসের মোকাবিলা করতে গিয়ে নাজেহাল বিশ্ববাসী। আক্রান্তের সংখ্যা গোটা দুনিয়ায় চার লক্ষ ছাড়িয়ে গিয়েছে। করোনা পরিস্থিতি ক্রমেই খারাপ হচ্ছে এদেশেও। ইতিমধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়ে গিয়েছে সাড়ে পাঁচশোর গণ্ডি। একের পর এক সংক্রমণের খবর আসছে দেশের নানা প্রান্ত থেকে। গোষ্ঠী সংক্রমণ এড়াতে শেষপর্যন্ত লকডাউনের পথে হাঁটতে হয়েছে ভারত সরকারকে। দেশের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা মহারাষ্ট্রের। ইতিমধ্যে এই রাজ্যে শতাধিক করোনা সংক্রমণের খবর পাওয়া গিয়েছে। এর মধ্যেই আশার আলো দেখাল পুনের এক সংস্থা। সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে এখানে তৈরি করা হল করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় টেস্ট কিট। যার সাহায্যে আড়াই ঘণ্টার মধ্যেই ব্যক্তি কোভিড ১৯ আক্রান্ত কিনা সেই পরীক্ষার ফল জানা সম্ভব হবে।

এতদিন কোনও ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত কিনা তা পরীক্ষা করার জন্য প্রয়োজনীয় টেস্ট কিট আনা হচ্ছিল বিদেশ থেকে। কিন্তু সেই কিট দেশের সব প্রান্তে পৌঁছচ্ছিল না বলে অভিযোগ উঠছিল। এমনকি ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত কিনা তা জানতে এই পরীক্ষায় সময় লেগে যাচ্ছিল ৭ ঘণ্টা। বর্তমানে গোটা দেশে চলছে লকডাউন। বন্ধ হয়ে গিয়েছে বিদেশের সঙ্গে বিমান চলাচলও। এই অবস্থায় বিদেশ থেকে কিট আনা সম্ভব হবে কিনা তা নিয়েও প্রশ্ন দেখা দিচ্ছিল। অবশেষে সেই সমস্যার সমাধান খুঁজে পেল ভারত সরকার।

 

 

পুনে শহরের মাইল্যাব ডিসকভারি সলিউশন প্রাইভেট লিমিটেডের বিজ্ঞানী ও গবেষকরা মাত্র ৬ সপ্তাহের মধ্যে বানিয়ে ফেলেছে করোনাভাইরাস পরীক্ষার এক টেস্ট কিট।  যার নাম দেওয়া হয়েছে মাইল্যাব প্যাথোডিটেক্ট কোভিড-নাইন্টিন কোয়ালিটেটিভ পিসিআর কিট। মাত্র আড়াই ঘণ্টায় এই কিটের সাহায্যে জানা যাবে কোনও ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত কিন।  একেবারে দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি এই কিটের সঙ্গে ভারত যে করোনা পরিস্থিতি কোমাবিলায় আরও একধাপ এগিয়ে গেল তা বলাইবাহুল্য। 

গৃহবন্দি দেশবাসী, কী ভাবে সময় কাটাবেন বাড়িতে, থাকল কিছু টিপস

পাকিস্তানে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ, আক্রান্তের সঙ্গে সেলফি তোলায় ব্যস্ত সরকারি আধিকারিকরা

রাজপথে ছেড়ে দিয়েছেন ক্ষুধার্ত বাঘ-সিংহ, এভাবেই নাকি রাশিয়ায় করোনা আটকাচ্ছেন পুতিন

ইন্ডিয়ান এফডিএ, সেন্ট্রাল ড্রাগস স্ট্যান্ডার্ড কন্ট্রোল অর্গানাইজেশনের পক্ষ থেকে এই কিট বাণিজ্যিক উত্‍পাদনের জন্য ইতিমধ্যে পুনের ওই সংস্থাকে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।  কিট তৈরির ক্লিয়ারেন্সও পাওয়া গিয়েছে ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়ার থেকে।  মাইল্যাব ডিসকভারি সলিউশন সংস্থার ডিরেক্টর হাসমুখ রাওয়াল জানিয়েছেন, বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা ও সিডিসি-র সমস্ত গাইডলাইন মেনেই তৈরি করা হয়েছে এই টেস্ট কিট। এই কিটে আগের থেকে পরীক্ষার খরচও অনেক কম পড়বে এবং দ্রুততার সঙ্গে চিকিৎসা পদ্ধতিও শুরু করা যাবে।

 করোনা টেস্ট কিট টিকে অনুমোদন দিয়ে দিয়েছে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চও ৷ একটি কিটের দাম  পড়ছে ৮০ হাজার টাকা ৷ মাত্র ১টি কিট দিয়েই ১০০ জন রোগীর নমুনা পরীক্ষা করা যাবে  ৷সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে, এক সপ্তাহে এক  থেকে দেড় লক্ষ টেস্ট কিট তারা উত্‍পাদন করতে পারবে৷ মাইল্যাব ডিসকভারির বিজ্ঞানী রঞ্জিত দেশাইয়ের কথায়, 'আমরা চেষ্টা করছি উত্‍পাদন আরও বাড়ানোর, যাতে আরও দ্রুত করোনা মোকাবিলা সম্ভব হয়৷ বিদেশ থেকে কেনা টেস্ট কিটের চেয়ে এক চতুর্থাংশ কম দাম এই কিটের৷'