করোনাভাইরাস মহামারির দ্বিতীয় তরঙ্গে টালমাটাল দেশের স্বাস্থ্য পরিষেবা। এরমধ্যেই সতর্কবার্তা এসেছে করোনার তৃতীয় তরঙ্গের। আর তাতে দেশের শিশুদেরও প্রাণের ঝুঁকি তৈরী হতে পারে, এমনটাই জানা গিয়েছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, ভাইরাসটির প্রথম তরঙ্গ অপেক্ষাকৃত প্রবীণদের আক্রমণ করেছিল, দ্বিতীয় তরঙ্গে আরও বেশি করে যুবরা আক্রান্ত হচ্ছে, আর তৃতীয় তরঙ্গ বিপজ্জনক হতে পারে শিশুদের জন্য। এই অবস্থায় কি আশার আলো দেখাচ্ছে ভারত বায়োটেক? তাদের তৈরি করোনা টিকা কোভ্যাক্সিন কি শিশুদের দেোয়ার জন্যও অনুমোদন পেল?

বস্তুত, এরকমই দাবি ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে। বলা হচ্ছে, ভারত সরকারের পক্ষ থেকে ভারত বায়োটেক সংস্থার তৈরি করোনা ভ্যাকসিন, কোভাক্সিনকে ১২  বছর ও তার বেশি বয়সী অপ্রাপ্তবয়স্কদের জন্যও অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। আর এই দাবি করা পোস্টই ছড়িয়ে পড়েছে সমস্ত সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে। আর তাতেই আশার সঞ্চার হয়েছ, করোনার তৃতীয় তরঙ্গ নিয়ে, উদ্বেগে থাকা বাবা-মায়েদের মনে। কিন্তু, সত্য়িই কী তাই? সোমবার এই বিষয়ে স্পষ্টতা দিল খোদ সরকার।  

প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরো, সোমবার এক টুইট বার্তায় স্পষ্ট জানিয়েছে, বর্তমানে যেসব টিকাকে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে, তা শুধুমাত্র ১৮ বছর ও তার বেশি বয়সী, অর্থাৎ প্রাপ্তবয়স্ক নাগরিকদেরই দেওয়া যাবে। কোনও করোনা টিকাই এখনও তার নিচে থাকা শিশুদের জন্য সুরক্ষিত নয়। কাজেই, ভারত বায়োটেকের কোভাক্সিন, ১২ বছর ও তার বেশি বয়সী শিশুদের দেওয়ার জন্য অনুমোদিত হয়েছে বলে যে দাবি করা হয়েছে ওই সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টে, তা ভুয়ো। ভারত সরকার এই জাতীয় কোনও অনুমোদন দেয়নি।

ভারতে এখনও পর্যন্ত জরুরি ভিত্তিতে ব্যবহারের জন্য অনুমোদন দেওয়া হয়েছে মাত্র ৩টি করোনা ভ্যাকসিনকে। অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার বিকশিত, সিরাম ইনস্টিটিউটে উৎপাদিত কোভিশিল্ড, ভারত বায়োটেকের তৈরি কোভ্যাক্সিন এবং রাশিয়ায় তৈরি স্পুটনিক ভি। প্রসঙ্গত এই তিনটি টিকারই ক্লিনিকাল ট্রায়াল, অর্থাৎ, মানবদেহে পরীক্ষা করা হয়েছে প্রাপ্ত বয়স্কদের উপরই। শিশুদের ক্ষেত্রে এই টিকাগুলি আদৌ নিরাপদ কিনা, কার্যকরী সুরক্ষা দিচ্ছে কিনা, কিংবা কত পরিমাণ ডোজে শিশুদের এই টিকাগুলি দিতে হবে, তার কিছুই এখনও জানতে পারেননি গবেষকরা। তাই, এখনও পর্যন্ত গোটা পৃথিবীতেই টিকা দেওয়া হচ্ছে শুধুমাত্র প্রাপ্ত বয়স্কদের।

"

১ মে তারিখ থেকে ভারতে দেশব্যাপী কোভিড টিকাকরণ অভিযানের তৃতীয় পর্ব শুরু হয়েছে। বর্তমানে, দেশের সব প্রাপ্তবয়স্কদের এই টিকাকরণ অভিযানের আওতাভুক্ত করা হয়েছে। রবিবার, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে, সারা দেশে ১৭ কোটিরও বেশি কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন ডোজ দেওয়া হয়েছে। এরমধ্যে ১৮ থেকে ৪৪ বছর বয়স গোষ্ঠীর ২০,২৯,৩৯৫ জন তাদের প্রথম ডোজ পেয়েছেন।