দেশে বৃহস্পতিবার দুপুরেই আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়ে গেছে ২ হাজারের গণ্ডি। নতুন সংক্রমণের সঙ্গে তাল রেখে বাড়ছে মৃত্যুহারও। এই অবস্থায় মারণ এই ভাইরাসের সংক্রমণে লাগাম আনতে নতুন এক অ্যাপ লঞ্চ করল ভারত সরকার। নতুন অ্যাপের নাম রাখা হয়েছে 'আরোগ্য সেতু'।

করোনা ভাইরাসের মোকাবেলায় কয়েকদিন আগেই হোয়াটসঅ্যাপে ভারত সরকার একটি নতুন চ্যাটবোট চালু করেছিল। এই চ্যাটবোটটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘মাইগভ করোনা হেল্পডেস্ক’। নতুন এই  চ্যাটবোটটি কোভিড -১৯ সম্পর্কিত সমস্ত প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই পরিষেবাটি ব্যবহার করতে, ৯০১৩১৫১৫১৫ নম্বরে হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ করতে হচ্ছে। এর পরেই  ‘মাইগভ করোনা হেল্পডেস্ক’ প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই চ্যাটবোটের মূল উদ্দেশ্যই হল দেশবাসীর কাছে  করোনা অতিমারী সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য সরবরাহ করা। তাহলে সরকারের নতুন লঞ্চ করা অ্যাপ  'আরোগ্য সেতু'র কাজ কী তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে অনেকের মনেই। এবার এই মারণ ভাইরাসকে বাগে আনতেই  নতুন অ্যাপটি বানিয়েছে ভারত সরকার। যার কাজ হল, আপনি কোনও করোনাভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে রয়েছেন কিনা, তারসন্ধান দেওয়া। 

 

 

স্মার্টফোনের লোকেশন ও ব্লু টুথই হল এই অ্যাপের প্রধান দুই অস্ত্র। লোকেশন ডাটা ব্যবহার করে 'আরোগ্য সেতু'  অ্যাপ জানতে পারবে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি ঠিক কোথায় আছেন। আর  ব্লু টুথ কানেকটিভিটি ব্যবহার করে অ্যাপটি জানিয়ে দেবে, যিনি মোবাইলে ‘আরোগ্য সেতু’ ডাউনলোড করেছেন তিনি আক্রান্ত ব্যক্তির ছ’ফুটের মধ্যে রয়েছেন কিনা। অর্থাৎ ‘আরোগ্য সেতু’ ব্যবহারকারী ব্যক্তি ‘হাই রিস্ক জোন’-এ আছেন কিনা, তা বুঝতে পারবে এই অ্যাপ। যদি ‘আরোগ্য সেতু’ ব্যবহারকারী ব্যক্তি হাই রিস্ক জোনে থাকেন, তাহলে অ্যাপ তাঁকে পরামর্শ দেবে, অবিলম্বে পরীক্ষা করান। 

 

 

করোনাভাইরাস থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য কী সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন সে ব্যাপারেও পরামর্শ দেবে ‘আরোগ্য সেতু’। আপনার যদি করোনা পরীক্ষা করা দরকার বলে মনে হয় অ্যাপটির তাহলে সে আপনাকে ১০৭৫ নম্বরে ফোন করতে বলবে। এখানে ফোন করলেই জানা যাবে  আপনার নিকটবর্তী কোথায় কোভিড ১৯ রোগের পরীক্ষা করা হচ্ছে।

দেশে দু'হাজার ছাড়িয়ে গেল করোনা সংক্রমণের ঘটনা, রক্ষা পেলেন না খোদ এইএমসের চিকিৎসক

সামাজিক দূরত্বকে বুড়ো আঙ্গুল, হাসপাতালের কোয়ারেন্টাইনেই চলল একসঙ্গে নামাজ পাঠ

একা নিজামুদ্দিনে রক্ষা নেই, এবার কারফিউয়ের মাঝেই জমায়েত রাজস্থানের দরগায়

কেউ যদি করোনাভাইরাস টেস্টে পজিটিভ হন, অথবা কোভিড ১৯ রোগীর সংস্পর্শে আসেন, তাহলে  সেই সম্পর্কিত তথ্য সরকারকে  দিয়ে দেবে  অ্যাপটি। পাশাপাশি অ্যাপটি ব্যবহারকারীর গোপনীয়তাও রক্ষা করবে। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ছাড়া  অপর কেউ  অ্যাপটিতে  সংরক্ষিত তথ্য দেখতে পাবেন না। অ্যাপের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি জানতে পারবেন, তাঁর দেহে কোভিড ১৯ এর লক্ষণ আছে কিনা। 

‘আরোগ্য সেতু’ অ্যাপের আরও অনেক বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এই মাধ্যমে করোনাভাইরাসের লক্ষণগুলিকে সনাক্ত করা যায়। পাশাপাশি এতে করোনা সংক্রান্ত  স্বাস্থ্যমন্ত্রকের আপডেটও দেখা যায়।  প্রতিটি রাজ্যের হেল্পলাইনের নম্বরও রাখা হয়েছে  ‘আরোগ্য সেতু’ অ্যাপে।  তাহলে আর দেরি কেন, সচেতন নাগরিক হিসাবে আপনিও গুগল প্লে স্টোর থেকে অ্যাপটি  ডাউনলোড করে নিন এবং করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির থেকে শতহস্ত দূরে থাকুন।