করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে আরও ১৯ দিনের জন্য লকডাউন বাড়িয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। দ্বিতীয় দফার লকডাউন শেষ হবে আগামী ৩ মে।  তবে এই সময়সীমার মধ্যে বেশ কয়েকটি বিষয়ে ছাড় দেওয়া হয়েছে। তাতে রয়েছে চার চাকার বেসরকারি গাড়ি। তবে বেসরকারি বা ভাড়ার গাড়ি চলাচলের অন্যতম প্রধান শর্তই হল চালক ছাড়া গাড়িতে মাত্র এক যান যাত্রী থাকবেন। একই সঙ্গে  কেন্দ্রীয় স্বারাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফ থেকে জানান হয়েছে চার চাকার গাড়ির যাত্রীকে অবশ্য পিছনের সিটে বসে থাকতে হবে। 
  কেন্দ্রীয় স্বারাষ্ট্র মন্ত্রকের দেওয়া নতুন বিধিতে ছাড় দেওয়া হয়েছে বাইক চলাচলের ওপর। তবে তাতেই রয়েছে শর্ত। সেই শর্ত হল, এটি বাইকে দুজন আরোহী থাকা চলবে না। আর দুই আরোহীর মাঝে বালিশ রাখলেও তাতে ছা়ড়া দেওয়া হবে না।  একই সঙ্গে জানান হয়েছে যে কোনও গাড়ি চলাচলেরক ক্ষেত্রেই স্থানীয় প্রশাসনের পরামর্শ নিতে হবে। 

এদিন কর্মক্ষেত্রের জন্যও বেশ কয়েকটি নিয়ম উল্লেখ করেছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। জানান হয়েছে,  কর্মক্ষেত্র নিয়মিত স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে উপস্থিত কর্মীদের। মাস্কের ব্যাবহার আবশ্যক করা হয়েছে। এয়ার কন্ডিশান যন্ত্রের তাপমাত্রা নির্দিষ্ট পরিমানে রাখতে হবে। প্রয়োজনের তুলনায় বেশি কর্মীকে আনা চলবে না। অফিসের মধ্যেও মেনে চলতে হবে সামাজিক দূরত্ব। 


আরও পড়ুনঃ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার আর্থিক অনুদানের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে বিল গেটস, ভারত পাকিস্তানের থেকেও পিছি...
আরও পড়ুনঃ 'চলো ঘর কি ওর' সোশ্যাল মিডিয়ায় এই প্রচারের কারণেই মুম্বইতে অভিবাসী শ্রমিকদের হুড়োহুড়ি, গ্রেফতার অভ...
আরও পড়ুনঃ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীকে বাঁচাতে গিয়ে বিপর্যস্ত স্বাস্থ্য কর্মীরা, চরম বর্বরতার ছবি মোরাদাবাদে
একই সঙ্গে জানান হয়েছে ১০ জনের বেশি মানুষকে এক জায়হায় জড়ো হতে দেওয়া যাবে না। একে অপরের থেকে নূন্যতম ৬ফুট দূরত্ব বজায় রাখতে হবে।  যে কোনও লিফটে দুই থেকে ৪ জনের বেশি মানুষকে উঠতে দেওয়া যাবে না। সরকারি নির্দেশিকা মেনেই সরকারি ও বেসরকার অফিসগুলি চালাতে হবে বলেও জানান হয়েছে।