করোনার দ্বিতীয় ঢেউতে বিপর্যস্ত মহারাষ্ট্র। কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউটা সবচেয়ে বেশি লাগে মহারাষ্ট্রে গায়েই। লকডাউন করার পরেও সংক্রমণ কমছে না। হাসপাতালে উপচে পড়ছে ভিড়, দ্রুত শেষ হয়ে আসছে বেড। মৃত্যুর সংখ্যাও পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। তবু এর মাঝেই লড়ছে মহারাষ্ট্র প্রশাসন। উদ্ভব ঠাকরের সরকার টিকাকরণে গিতে আনতে নানা উদ্যোগ নিয়েছে। মুম্বইয়ে গাড়িতে বসে থাকা অবস্থাতেই দেওয়া হচ্ছে টিকা। এতে কিছুটা হলেও টিকাকরণ কেন্দ্রগুলির ওপর চাপ কমছে। স্য়ানিটাইজেশনের কাজ থেকে কঠিন সময়ে দ্রুত স্বাস্থ্য পরিকাঠামো উন্নতি করা, সবই দক্ষতার সঙ্গে সামলাচ্ছে উদ্ভব ঠাকরের সরকার। আজ, দেশের চার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে কথা বললেন প্রধানমন্ত্রী।

আরও পড়ুন: ভয়ঙ্কর করোনার থার্ড ওয়েভের শিকার হতে পারে শিশুরাই, সতর্কতা অবলম্বনে কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা

PM Modi speaks with Thackeray, praises Maharashtra's efforts to fight COVID-19

Read @ANI Story | https://t.co/OLSsYPdDox pic.twitter.com/IZWmhuPzku

আর তাই মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কোভিড বিষয়ে আলোচনার সময়ই উদ্ভব ঠাকরের প্রশাসনের ভূমিকার প্রশংসা করলেন প্রধানমন্ত্রী। কঠিন সময়ে মহারাষ্ট্রের কাছে খুশির খবর রাজ্যের ১১টি জেলায় আগামী সপ্তাহ থেকে নয়া সংক্রমণের সংখ্যা কমতে থাকবে। অন্তত বিশেষজ্ঞরা তাই বলছেন। এদিকে, কোভিডে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার ফর্মুলায় মহারাষ্ট্রে জেল ভর্তি হয়ে গিয়েছে। ফলে ছোট অপরাধের ক্ষেত্রে জেলে না দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। 

আজ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী করোনা পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেন তামিলনাড়ুর নতুন মুখ্যমন্ত্রী এমকে স্ট্যালিনের সঙ্গেও।

মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানের সঙ্গে রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে পর্যালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী। অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জগনমোহন রেড্ডিকে। যে জগনমোহন গতকাল হেমন্ত সোরেনের ফোন কাণ্ডে প্রধানমন্ত্রীর পাশে দাঁড়িয়েছিলেন।