সেড়ে উঠলেন প্রিন্স চার্লস। বিশ্বের প্রথম বিশিষ্ট রাষ্ট্রনেতা হিসাবে গত মাসে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছিলেন ব্রিটিশ রাজ সিংহাসনের পরবর্তী উত্তরাধিকারি। কিন্তু, তিনি ইতিমধ্য়েই সুস্থ হয়ে উঠেছেন, আর তার পিছনে রয়েছে ভারতীয় আয়ুর্বেদ এবং হোমিওপ্যাথি ওষুধের কামাল, এমনটাই দাবি করেছেন ভারতের কেন্দ্রীয় আয়ুশ মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী শ্রীপদ নায়েক। 'সৌক্য' নামে বেঙ্গালুরুর একটি আয়ুর্বেদিক রিসর্ট ব্রিটিশ রাজপুত্রের চিকিৎসা করেছে বলে দাবি করেছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার রাতে আয়ুশ প্রতিমন্ত্রী শ্রীপদ নায়েক বলেন,  বেঙ্গালুরুর সৌক্য আয়ুর্বেদিক রিসর্টের প্রধান ডাক্তার আইজাক মাথাইয়ের তাঁকে ফোন করে এই কথা জানিয়োছেন। ডাক্তার মাথাইউ বলেছেন, আয়ুর্বেদ এবং হোমিওপ্যাথির মাধ্যমে প্রিন্স চার্লসের যে চিকিৎসা চলছিল, তা সফল হয়েছে। এরপরই ডাক্তার মাথাই-এর চিকিৎসা পদ্ধতি অধ্যয়ন করার জন্য আয়ুশ মন্ত্রক একটি টাস্কফোর্স গঠন করেছে। সেইসঙ্গে ডাক্তার মাথাই-কে তাঁর চিকিৎসা প্রক্রিয়া সম্পর্কে একটি প্রতিবেদন মন্ত্রকের কাছে জমা দিতে বলা হয়েছে।

কনিকা কাপুর-এর থেকেই করোনার শিকার হলেন প্রিন্স চার্লস, জল্পনা তুঙ্গে

ল্যাম্বারগিনি মানেই গাড়ির কুলে এক অভিজাত সম্প্রদায়, কিন্তু সব ফেলে এখন মাস্ক বানাচ্ছে তারা

লকডাউনের ফাঁকা রাস্তায় দু'পায়ে হেঁটে বেড়াচ্ছে একটি গাছ, ভাইরাল হল ভিডিও, দেখুন

ভিন রাজ্য থেকে ফিরে জঙ্গলে 'নিভৃতবাস', করোনা সচেতনতার নজির নদিয়ার চার যুবকের

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী-ও বৃহস্পতিবার প্রিন্স চার্লস-কে ফোন করে তাঁর রোগ প্রায় সেড়ে যাওয়ার জন্য অভিননন্দন জানিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। অপরদিকে, প্রিন্স চার্লস ভারতে আটকা পড়া ব্রিটিশ নাগরিকদের সাহায্যে ভারতের সরকারের প্রচেষ্টার জন্য প্রধানমন্ত্রী মোদীকে ধন্যবাদ জানান। সেইসঙ্গে বিলেতের মাটিতেও প্রবাসী ভারতীয় জনগোষ্ঠী করোনাভাইরাস মহামারীর মোকাবিলায় যেভাবে অবদান রাখছেন তার প্রশংসা করেছেন যুবরাজ।

গত ২৫ মার্চ স্কটল্যান্ডের ক্লেরেন্স হাউস থেকে এক বিবৃতিতে প্রিন্স চার্লস-এর করোনাভাইরাস পরীক্ষার ফল ইতিবাচক এসেছে বলে জানানো হয়েছিল। তবে তাঁর দেহে রোগের সামান্যই লক্ষণ দেখা যাচ্ছিল, তা বাদে তিনি সুস্থই ছিলেন। তাঁর স্ত্রী ডাচেস অফ কর্নওয়াল ক্যামিলা পার্কার অবশ্য রোগের প্রকোপ থেকে বেঁচে গিয়েছিলেন। তবে তাঁরা দুজনেই স্কটল্যান্ডের ওই বাড়িতেই নিজেদের স্ব-বিচ্ছিন্নতায় আছেন।