করোনাভাইরাসের গোষ্ঠী সংক্রমণ আটকাতে ২১ দিনের জন্য গোটা দেশ লকডাউন করে দিয়েছে ভারত সরকার। মারণ ভাইরাসকে আটাকতে মানুষকে গৃহবন্দি রাখা ছাড়া উপায় ছিল না প্রশাসনের। দেশব্যাপী করোনা সংক্রমণের এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে  টালমাটাল সকলেরই প্রাত্যহিক জীবন। যার জেরে এবার নিজের বিয়ে পিছিয়ে দিলেন ছত্তিশগড়ের রায়পুরের ডিস্ট্রিক্ট কালেক্টর শীতল বানসল।

শীতলের সঙ্গে ২৬ মার্চ অর্থাৎ বৃহস্পতিবার বিয়ে হওয়ার কথা ছিল ভারতীয় ফরেস্ট সার্ভিসের আধিকারিক আয়ূষের। কিন্তু দেশজুড়ে করোনাভাইরাসের কারণে শুরু হওয়া লকডাউনের জন্য নিজেদের বিয়ে পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন দু'জনে। মহামারীর সংক্রমণ আটকাতেই তাঁরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানান শীতল।

 

 

শীতলের কথায়,' আমরা যদি এই বিয়ের অনুষ্ঠানটা করতাম, তাহলে সমাজের কাছে একটা খারাপ উদাহরণ তৈরি হত। সবাইকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার কথা বলা হচ্ছে।' বর্তমানে অমনপুর পঞ্চায়েতের প্রধান আধিকারিক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন শীতল। দেশের এই সংকটময় পরিস্থিতিতে তিনি মানুষের সেবাতেই ব্যস্ত থাকতে চান। দেশ করোনাভাইরাসের বিপদ থেকে মুক্তি পাওয়ার পরই বিয়ের পিঁড়িতে বসতে চান ভারতীয় সিভিল সার্ভিসের এই তরুণ আধিকারিক। 

গমগম করা ভিক্টোরিয়া যেন একেবারে ভুতুড়ে বাড়ি, খাঁ খাঁ করছে গোটা চত্বর, দেখুন ভিডিও

মহামারির পরবর্তী কেন্দ্র আমেরিকা, করোনা আক্রান্ত সব দেশকেই লকডাউনের পরামর্শ 'হু'র

চিনকে বদনাম করছেন ট্রাম্প, জবাব দিতে ভারতকে পাশে চাইলেন জিংপিং

২৬ মার্চ বিয়ের জন্য সব প্রস্তুতিই নেওয়া হয়েছিল। কার্ড ছাপানো থেকে কনের পোশাক সব কিছুর প্রস্তুতিই সারা হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণেই পুরো প্রস্তুতিই আপাতত স্থগিত করে দেন শীতল ও আয়ূষ। 

বর্তমানে প্রতিদিনিই দেশে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। বৃহস্পতিবার সংখ্যাটা পৌঁছে গেছে সাড়ে ছয়শোতে। মৃতের সংখ্যা ১৩। এই পরিস্থিতিতে করোনাসংক্রমণ আটকাতে দেশকে লকডাউন করেছে ভারত সরকার। দেশবাসীকে ২১ দিন বাড়িতে থাকতেই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।